কথা রাখেননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, বিভীষণ হাঁসদার মেয়ের চিকিৎসা করানোর প্রতিশ্রুতি দিলেন সায়ন্তিকা

প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তারপর আর ফিরেও তাকাননি তিনি। মাস চারেক আগে বাঁকুড়ার চতুরডিহি গ্রামের এক আদিবাসী পরিবারের বাড়িতে মধ্যাহ্নভোজ সেরেছিলেন শাহ। পাত পেড়ে খেয়ে অমিত বলেছিলেন বিভীষণ হাঁসদার মেয়ের চিকিৎসার ভার নেবেন তিনি। কিন্তু এখন তা অতীত। ঠিক এমন সময় ‘দেবদূত’ হয়ে এলেন এলাকার তৃণমূল প্রার্থী তথা অভিনেত্রী সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায়। কথা দিয়ে বললেন, ভোটে জিতলে বিভীষণের মেয়ের চিকিৎসার ভার নেবেন তিনি।

আরও পড়ুন-দাসপুর, চন্দ্রকোণায় ও ডেবরায় সভা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

গত ৫ নভেম্বর বাঁকুড়ায় বিভীষণ হাঁসদার বাড়িতে গিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। দীর্ঘদিন ধরে বিভীষণের মেয়েটি হাই সুগারে আক্রান্ত। ভেবেছিলেন মেয়েটারও চিকিৎসা হবে। তাঁর চিকিৎসার জন্য বিজেপি’র সাহায্য চেয়েছিলেন। কিন্তু কোনও কাজ হয়নি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ফিরে যাওয়ার পর আর কেউ তেমন ফিরে তাকাননি।

অবশেষে ওই চতুরডিহি গ্রামে প্রচারে গিয়েই হাঁসদার বাড়িতে ঢুকে পড়লেন সায়ন্তিকা। কথা দিলেন, নির্বাচনে জিতলে রচনার চিকিৎসা করাবেন। সায়ন্তিকা আশ্বাস দিয়েছেন, তিনি বাংলারই মেয়ে। এসে প্রতিশ্রুতি দিয়ে চলে যাবেন না। বাঁকুড়ায় থেকে কাজ করবেন। সেই কাজ করার সুযোগ বাঁকুড়া তাঁকে দেয় কিনা, বলবে সময়।

Advt