*রাজনাথ- নারাভানেকে হঠাৎ লাদাখ যেতে বলা হলো, বড় সিদ্ধান্তের ইঙ্গিত*

চিন-ইস্যুতে সম্ভবত বড়সড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে কেন্দ্র৷

দিল্লি সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সকালে শীর্ষস্তরের এক বৈঠকের পরেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং সেনাপ্রধান সেনাপ্রধান এম এম নারভানেকে শুক্রবারই লাদাখ যেতে বলা হয়েছে৷

প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বা LAC- তে ভারত-চীন সংঘর্ষের পর এই প্রথম লাদাখ যাচ্ছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। থাকতে বলা হয়েছে নর্দার্ন আর্মি সেক্টরের প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াই কে জোশি’কেও।

ওদিকে, দিনকয়েক আগেই সেনাপ্রধান নারভানে লাদাখ ঘুরে এসেছেন৷ গালওয়ান সংঘর্ষে আহত ভারতীয় জওয়ানদের সঙ্গে দেখা করার পাশাপাশি একাধিক বৈঠকও করেন
নারভানে৷ তার কয়েকদিনের মধ্যে ফের সেনাপ্রধানের সীমান্তে কিছুতেই ছোট বা মাঝারি কারনে হতে পারেনা৷

সীমান্তে উত্তেজনার মাঝেই নারভানেকে নিয়ে রাজনাথ সিংয়ের আচমকা লাদাখ যাওয়া স্বাভাবিক ঘটনা নয় বলেই মনে করছেন সমর বিশেষজ্ঞরা৷ তাঁদের বক্তব্য, সীমান্তের দায়িত্ব থাকা সেনাকর্তাদের কাছে দেশের সরকারের বিশেষ কোনও বার্তা পৌঁছে দিতেই রাজনাথ- নারভানে স্তরের দেশের শীর্ষ দুই ব্যক্তি কয়েক ঘন্টার নোটিশে সীমান্তে যাচ্ছেন৷

গালওয়ানে সংঘর্ষ হয়েছে গত ১৫ জুন৷ এরপর থেকেই কূটনৈতিক, সামরিক ও প্রশাসনিক স্তরে একের পর এক বৈঠক চলছে। কোনও বৈঠকেই সীমান্তে উত্তেজনা কমানোর সূত্র মেলেনি৷ গত মঙ্গলবার চৌশলে ভারত-চিন সেনা কমান্ডারদের তৃতীয় বৈঠকেও ‘কার্যকর’ সমাধানসূত্র’ বের হয়নি। তবে ধারাবাহিক বৈঠক কার্যত নিস্ফলা হলেও এখনই হতাশ নন সেনা বাহিনী৷ প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বা LAC থেকে সেনা সরানো নিয়ে এখনও সেনা ও কূটনৈতিক স্তরে বেশ কয়েকটি বৈঠক প্রয়োজন বলেই মনে করছে ভারতের সেনাবাহিনী।
গত মঙ্গলবার চৌশল মঙ্গলবার সীমান্তে প্রায় ১১ঘণ্টা ধরে ম্যারাথন বৈঠক চলে। সেখানে ভারতের পক্ষে ছিলেন ১৪ কোরের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরেন্দ্র সিংহ ও চিনের তরফে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জিংজিয়াং মিলিটারি ডিস্ট্রিক্টের চিফ মেজর জেনারেল লিউ লিন। জানা গিয়েছে, ধাপে ধাপে কিভাবে সেনা সরিয়ে নেওয়া হবে, দু’পক্ষের বৈঠকে এই বিষয়টিকেই অগ্রাধিকার দেওয়া হয়৷ তবে বৈঠক কার্যত ব্যর্থই হয়েছে৷

আর এ ধরনের কঠিন পরিস্থিতিতে শুক্রবারই ঝটিকা সফরে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং সেনাপ্রধান এম এম নারভানে লাদাখ যাওয়ার খবর জল্পনা বহুগুণ বাড়িয়েছে৷
নির্ভরযোগ্য সূত্রে
জানা গিয়েছে, লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন থাকা ভারতীয় সেনার সঙ্গে কথা বলবেন রাজনাথ সিং। পরবর্তী কৌশল এবং পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা করবেন সীমান্তের সেনাকর্তাদের সঙ্গে।