করোনা টিকা নেওয়ার পর দুজনের মৃত্যু, পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ৫৮০ জনের

শনিবার থেকে ভারতে শুরু হয়েছে জরুরি ভিত্তিতে কোভিড (covid) ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ। করোনা অতিমারি মোকাবিলায় অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সব রাজ্যেই চলছে টিকাকরণ (vaccination)। এখনও পর্যন্ত গোটা দেশে ৩ লক্ষ ৮১ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫৮০ জন টিকাপ্রাপকের শরীরে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া (side effects) দেখা দেয়। সাতজনের শারীরিক অবস্থা গুরুতর। ভ্যাকসিন নেওয়ার পর দুজনের মৃত্যুও (death) হয়েছে। তবে এই মৃত্যুর সঙ্গে টিকাকরণের কোনও যোগ নেই বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হল।

করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে উত্তরপ্রদেশের মোরাদাবাদে ওয়ার্ড বয়ের মৃত্যু হওয়ায় আশঙ্কা বাড়ে। শনিবার টিকা নেওয়ার পরই গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন জেলা হাসপাতালের ওই কর্মী। রবিবার সন্ধ্যায় তিনি মারা যান। সেই সময় তাঁর তীব্র শ্বাসকষ্ট ও বুকে ব্যথার উপসর্গ ছিল। মৃত্যুর কারণ খুঁজতে করা হয় পোস্টমর্টেম। মোরাদাবাদ হাসপাতালের চিফ মেডিকেল অফিসার জানান, হার্ট অ্যাটাকের ফলেই মৃত্যু হয়েছে ৪৬ বছরের ওই ওয়ার্ড বয়ের। আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। এর সঙ্গে ভ্যাকসিনের সম্পর্ক নেই। অন্যদিকে দ্বিতীয় মৃত্যুর ঘটনাটি ঘটেছে কর্ণাটকের বেল্লারিতে। তাঁর বয়স ৪৩ বছর। বেল্লারির ওই ব্যক্তিও শনিবার করোনা ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন। তারপরই মারা যান। এই ঘটনা নিয়ে সরকারি স্তরে জানানো হয়েছে, কার্ডিও-পালমোনারি ফেলিওরে মৃত্যু হয়েছে বেল্লারির টিকাপ্রাপকের। তবে এক্ষেত্রে পোস্টমর্টেমের রিপোর্ট আসতে এখনও বাকি। ভারতের নানা রাজ্যে এখন করোনা প্রতিষেধক দুটি ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। একটি সেরাম ইনস্টিটিউটের পাঠানো কোভিশিল্ড ও অন্যটি ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন। প্রথম ধাপে দেশের ৩ কোটি মানুষকে জরুরি ভিত্তিতে দুটি ডোজের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। চিকিৎসকদের বক্তব্য, ১০ শতাংশ ক্ষেত্রে মৃদু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।