দিল্লিতে ইজরায়েলি দূতাবাসের সামনে বিস্ফোরণের নেপথ্যে কি ইরান-যোগ?

দিল্লির (Delhi) হাই সিকিউরিটি জোনে ইজরায়েলি দূতাবাসের (Israeli embassy) সামনে শুক্রবার বোমা বিস্ফোরণের (bomb blast) নেপথ্যে কি ইরান (Iran) যোগ রয়েছে? তদন্ত সূত্রে এই সম্ভাবনা জোরালো হয়েছে। বিস্ফোরণস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি খাম, যার ওপরে ইজরায়েলি দূতাবাসের ঠিকানা লেখা ছিল। সেখান থেকে একটি চিঠিও উদ্ধার করেছে পুলিশ, যাতে এই বিস্ফোরণকে ‘ট্রেলার’ বলে অভিহিত করা হয়েছে। চিঠিতে ইরানের দুই নিহত গুরুত্বপূর্ণ নেতার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এরা হলেন জেনারেল কাশেম সোলেইমানি ও পরমাণু বিজ্ঞানী ডঃ মোহসেন ফকরিয়াজাদেহ। উল্লেখ্য, মেজর জেনারেল সোলেইমানি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হন। তিনি ইরানের ইসলামিক রেভলিউশনারি গার্ড গ্রুপের জনপ্রিয় কমান্ডার ও সেদেশের অত্যন্ত প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। অন্যদিকে, ফকরিয়াজাদেহ ছিলেন ইরানের প্রথম সারির পরমাণু বিজ্ঞানী। তেহরানের সন্দেহ, ইজরায়েলের তৈরি করা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রেই খুন করা হয়েছে ফকরিয়াজাদেহকে। সুলেইমানি হত্যার পিছনেও ইজরায়েলের প্রত্যক্ষ মদত ছিল। এই দুই হত্যার পরে ইরানের ধর্মীয় শীর্ষ নেতা আয়াতোল্লা আলি খামেইনি যেকোনও মূল্যে প্রতিশোধ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন:ফের মার্কিন মুলুকে অসম্মানিত জাতির জনক, ভেঙে ফেলা হল গান্ধীজীর মূর্তি

ভারতে ইজরায়েলি দূতাবাসের সামনে এই হামলার ঘটনায় প্রাথমিকভাবে ইরান যোগের তত্ত্বই এখন সামনে আসছে। ভিভিআইপি জোনে এই বোনা বিস্ফোরণের পর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এনআইএ। দিল্লি পুলিশ সূত্রে খবর, সিসিটিভি থেকে দেখা গিয়েছে, একটি ট্যাক্সি থেকে দুই ব্যক্তি নেমে ইজরায়েলি দূতাবাসের সামনে কিছু রেখেছিল। ট্যাক্সিটিকে চিহ্নিত করা গিয়েছে। তার চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করে সন্দেহভাজন দুই ব্যক্তির স্কেচ আঁকানো হচ্ছে।

Advt