কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘টুম্পা সোনা’ গানে উদ্দাম নাচ, বহিষ্কৃত ৫

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ঢুকে  ‘টুম্পা সোনা’ গানে উদ্দাম নাচ ছাত্র-ছাত্রীদের। আর তারই  জেরে শাস্তি দেওয়া হল ৫ জনকে। আগামী ২ বছরের জন্য সাসপেন্ড করা হল তাদের। স্কুল খুললেও কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় এখনও চালু হয়নি। কিন্তু কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পুজোয় অংশ নেন একাধিক ছাত্র ছাত্রীরা। এবিষয়ে, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা পুজোর কোনও অনুমতি দেয়নি। তা সত্ত্বেও পুজো হয়েছে এবং পুজো চলাকালীন একদল ছাত্রছাত্রী গানের সঙ্গে উদ্দাম নাচ করে বলে অভিযোগ। তাই তাদের সাসপেন্ড করা হয়েছে। সাসপেন্ড হওয়া ছাত্রছাত্রীরা মানহানির অভিযোগে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হচ্ছে বলে খবর।

সরস্বতী পুজোয় কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাসে ডিজে বাজিয়ে ‘টুম্পা সোনা’ গানের তালে নাচের ছবি ভাইরাল হয়েছিল। আর সেই থেকেই শুরু হয় বিতর্ক। সেই ঘটনার তদন্তে তৈরি হয় কমিটি। কমিটির রিপোর্টে সরস্বতী পুজো আয়োজক ৫ জনের বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ করা হয়েছে। উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, “আগামী দুই বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ক্যাম্পাসে ওই ৫ জন ঢুকতে পারবে না।”  এই ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের তরফে জানানো হয়েছে, যেহেতু তারা প্রত্যেকবছর পুজো করে, তাই এবছরও তারা পুজো করেছে।

তবে পুজো হলেও নাচের ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারক কমিটি সিন্ডিকেট এই সিদ্ধান্ত নেয়। এই সিন্ডিকেট ইতিমধ্যে ৫ জনকে চিহ্ণিত করেছে। তাদের ২ বছর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেওয়া হবে না। অন্যদিকে সাসপেন্ড হওয়া ছাত্রদের মধ্যে এক ছাত্রের অভিযোগ “কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পুজো বন্ধ করে দিতে চাইছিলেন কেউ কেউ। আসলে পুজো বন্ধ করে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বিজেপির হাতে হাতিয়ার তুলে দিতে চাইছেন তাঁরা।” তারা আরও জানিয়েছেন, সরস্বতী পুজোর অনুমতি চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। যদিও সেই চিঠির জবাব দেওয়া হয়েছিল কী না তা এখনও অস্পষ্ট।

Advt