কোকেন কাণ্ডে এবার রাকেশ সিংকে সমন, চরম অস্বস্তিতে বিজেপি! টিকিট নিয়েই দ্বন্দ্ব?

নাম আগেও জড়িয়েছিল, এবার কোকেন কাণ্ডে (Drug Case) বিজেপির (BJP) “বাহুবলী” নেতা রাকেশ সিংয়ের (Rakesh Singh) বিরুদ্ধে সমন (Summon) জারি করল করল পুলিশ (Kolkata Police)। আজ, মঙ্গলবার বিকেল ৪টে বিজেপি নেতাকে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কীভাবে উঠে এলো রাকেশ সিংয়ের নাম? কয়েক লক্ষ টাকার কোকেন-সহ হাতেনাতে গ্রেফতারির পর, গত শনিবার বিজেপি নেত্রী পামেলা গোস্বামী (Pamela Goswami) ও তাঁর সঙ্গী প্রবীর দে’কে নিয়ে যাওয়া হয় আলিপুর আদালত চত্বরে। সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরার সামনে আদালত চত্বরে চিৎকার জুড়ে দেন পামেলা। গলা চড়িয়ে বিজেপি নেত্রী বলেন, “কৈলাস বিজয়বর্গিয় ঘনিষ্ঠ রাকেশ সিং আমাকে চক্রান্ত করে ফাঁসিয়েছে। আমি চাই সিআইডি তদন্ত হোক। বিজেপির রাকেশ সিংকে যেন গ্রেফতার হয়। তাহলে প্রকৃত সত্য উঠে আসবে।” এজলাসে তোলার সময়েও রাকেশের নাম শোনা যায় পামেলার গলায়। তাঁকে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে দেওয়া হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে পামেলা ও তাঁর সঙ্গীদের দফায় দফায় জেরা করে ঘটনার শিকড়ে পৌঁছতে চাইছেন তদন্তকারীরা। পামেলার পার্লারেও তাঁকে সঙ্গে নিয়ে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। সেখান থেকে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি উদ্ধার হয়েছে। যা এই মামলার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, জেরতেও বারবার রাকেশ সিংয়ের নাম বলেছেন পামেলা।

এবার তদন্তে আরও গতি আনতে সেই রাকেশ সিংয়ের বিরুদ্ধে সমন জারি করল পুলিশ। এদিকে অসমর্থিত সূত্রের খবর, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে টিকিট নিয়েই যত গণ্ডগোল। পামেলা, প্রবীরদের মতো একঝাঁক যুব নেতা-নেত্রীরা নির্বাচনের টিকিটের জন্য চাপ সৃষ্টি করছিলেন। বিভিন্ন লোকের সঙ্গে যোগাযোগও শুরু করেন তাঁরা। এই সময়েই রাকেশ ঘনিষ্ঠ এক বিজেপি নেতা পামেলা এবং প্রবীরের সঙ্গে যোগাযোগ হয়। এর মাঝেই এক নেতার সঙ্গে পামেলাদের দেখা করাতে নিয়ে যায় রাকেশ ঘনিষ্ট ওই যুবক। গাড়িতে ছিলেন পামেলা, প্রবীর, ওই যুবক এবং সোমনাথ নামে এক নিরাপত্তারক্ষী। খবর, পামেলা গাড়ির সামনের সিটে বসেছিলেন। গাড়ির পিছনে প্রবীর এবং সোমনাথে মাঝে ছিলেন ওই যুবক।

আরও জানা গিয়েছে, নিউআলিপুরে সবাই একবার গাড়ি থেকে নেমেছিলেন। তখনও গাড়িতেই বসেছিলেন যুবক। সেখানেই নাকি তিনি জামা বদল করেন। এরপর গাড়িতেই দুটো প্যাকেট ফেলে চলে যান, আর এই গোটা ঘটনা রাকেশের নির্দেশেই হয়েছে বলে দাবি পামেলাদের তরফের। ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকেই এই কাজ বলছেন পামেলা-প্রবীরের ঘনিষ্ঠ সূত্র। পামেলার বিরুদ্ধে চক্রান্ত, দলীয় কোন্দল, নাকি অন্যকিছু? এখনও স্পষ্ট নয় আসল কারণ। তদন্ত করছে পুলিশ। তার মাঝেই রাজেশ সিংকে সমন পাঠানোয় এই মামলার মোড় ঘুরে গেল বলেই মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল।

Advt