বন্যায় ভ্রূক্ষেপ নেই, অসম সরকার ব্যস্ত হাইজ্যাক বিধায়কদের আপ্যায়নে! প্রতিবাদ তৃণমূলের

ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে অত্যন্ত বেহাল অবস্থা অসমবাসীর(Assam)। জল যন্ত্রণায় নাকাল রাজ্যের প্রায় ২০ লক্ষ মানুষ। তবে গুরুতর এই পরিস্থিতিতে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর পরিবর্তে শাসকদলের নেতা মন্ত্রীরা ব্যস্ত রাজনীতির খেলায়। কখনও রাজ্যবাসীকে দুর্দশার মধ্যে ফেলে মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা(Himant Biswasharma) চলে যাচ্ছেন ত্রিপুরাতে(Tripura) ভোটের প্রচারে, তো কখনও চুরি করে আনা শিবসেনা(Shiv Sena) বিধায়কদের আদর আপ্যায়নে। রাজ্যবাসীর এমন বেহাল অবস্থার মাঝে মুখ্যমন্ত্রীর এহেন ভুমিকার বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামল তৃণমূল(TMC)।

ঘোড়া কেনাবেচার অঙ্কে সরকার ফেলতে মহারাষ্ট্রে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিজেপি। ৪০ জনের বেশি বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে প্রথমে গুজরাট ও তারপর অসমের গুয়াহাটিতে রিসর্ট বন্দি করা হয়েছে বিধায়কদের। যে রিসর্টে বিধায়কদের হাইজ্যাক করে রাখা হয়েছে তার বাইরেই এদিন বিক্ষোভ দেখাতে দেখা যায় তৃণমূলকে। বিক্ষোভে উপস্থিত ছিলেন, দলের রাজ্য সভাপতি রিপুণ বোরা ওই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন। তৃণমূল কর্মীদের সেই বিক্ষোভ দমন করতে পুলিশ দিয়ে কর্মীদের গ্রেপ্তার করিয়েছে অসম সরকার।

অসমের ভয়াবহ বন্য পরিস্থিতিতেও সাধারণ মানুষের পাশে দাড়াতে দেখা যাচ্ছে না অসম সরকারকে। বেশিরভাগ এলাকাতেই মিলছে না আশ্রয় ও খাবার। না দেওয়া হচ্ছে ত্রাণ। এই অবস্থায় সরকারের উপর রীতিমতো ক্ষুব্ধ মানুষ। এর জেরে অসম তৃণমূল গতকালই টুইটে জানিয়েছিল, “বিদ্যুৎ নেই। বিশুদ্ধ পানীয় জল নেই। বিদ্যুৎ বিপর্যয় মোকাবিলায় কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। মানুষের দুর্ভোগ লাঘব করতে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। চারপাশে খুঁজলেও দুর্গতদের পাশে কোনও নেতা-মন্ত্রীকে চোখে পড়ছে না। রয়েছেন শুধু ৪০ জন ভিন রাজ্যের বিধায়ক। অসম বিজেপির সস্তা রাজনীতি আজ সকলের সামনে ফাঁস হয়ে গিয়েছে। আর সঙ্গে প্রকাশ্যে এসেছে এমন অসংবেদনশীল মুখ্যমন্ত্রীর ছবি!” এরপরই বৃহস্পতিবার শিব সেনা বিধায়কদের যে হোটেলে রাখা হয়েছে সেখানে বিক্ষোভ দেখাল তৃণমূল।

অসম তৃণমূলের এহেন প্রতিবাদ প্রসঙ্গে এদিন বঙ্গ তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, “বন্যা বিধ্বস্ত অসমে যেখানে মানুষের পাশে দাড়ানোর কথা মুখ্যমন্ত্রীর, সেখানে রাজনীতির খেলায় শিবসেনার বিধায়কদের ঘিরে রাখতে ব্যস্ত তিনি। বন্যা কবলিত রাজ্যবাসীকে দুর্দশার মধ্যে ফেলে কখনও তিনি ত্রিপুরাতে প্রচারে যাচ্ছেন আর এখন বিধায়ক হাইজ্যাক করে ক্ষমতা দখলের রাজনীতির পাহারায় ব্যস্ত। তৃণমূল যেদ প্রতিবাদ দেখিয়েছে তা অত্যন্ত ন্যাজ্য প্রতিবাদ।”


Previous articleCorona update: ফের বাড়ল উদ্বেগ, দৈনিক সংক্রমণ ১৩ হাজারের বেশি