BCCI: এক সপ্তাহ পিছিয়ে গেল কোর্টের শুনানি, ২৮ জুলাই হবে সৌরভ-জয় শাহদের ভাগ‍্য নির্ধারণ

শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, পি এস নরসিমার পরিবর্তে এই বিষয়ে অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে নিযুক্ত করা হলো সিনিয়র বিচারপতি মনিন্দর সিংকে।

আরও এক সপ্তাহ পিছিয়ে গেল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (Sourav Ganguly) ও জয় শাহের (Jay Shah) ভাগ্যে। বিসিসিআইয়ে (BCCI) তাদের ভাগ‍্য কী, তা জানতে হলে অপেক্ষা করতে হবে আরও এক সপ্তাহ। পিছিয়ে গেল সুপ্রিম কোর্টের শুনানি। পরবর্তী শুনানি হবে এক সপ্তাহ পরে, অর্থ‍্যাৎ ২৮ জুলাই। বিসিসিআই নিজেদের সংবিধান সংশোধন করে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় -জয় শাহকে স্বপদে বহাল রাখতে চাইছে। বিসিসিআই-এর বর্তমান প্রেসিডেন্ট এবং সচিবের বোর্ডের পদে মেয়াদ ফুরানোর কথা সেপ্টেম্বরে। তবে গোটা বিষয়টিই নির্ভর করবে সুপ্রিম কোর্টের রায়ের উপর।

কুলিং অফ পিরিয়ডের নিয়মের আওতার বাইরে থেকে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ও জয় শাহ নিজেদের পদে বহাল থাকতে পারেন, তাই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে বিসিসিআই। এই নিয়ে বছর দুই আগেই বিসিসিআই এই আবেদন করেছিল। কিন্তু প্রথমে করোনার জেরে শুনানি পিছিয়ে যায়। তার পরেও বিষয়টি ঝুলেই ছিল। সম্প্রতি শীর্ষ আদালতকে এই বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ করার আর্জি জানানো হয়েছিল বিসিসিআইয়ের তরফ থেকে। আর তার শুনানি ছিল বৃহস্পতিবার। প্রধান বিচারপতি এনভি রামানা, বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারি এবং বিচারপতি হিমা কোহলির বেঞ্চে আজ এই মামলাটি ওঠে। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, পি এস নরসিমার পরিবর্তে এই বিষয়ে অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে নিযুক্ত করা হলো সিনিয়র বিচারপতি মনিন্দর সিংকে। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বিশেষজ্ঞের মতামত নিতেই আদালতের বন্ধু বা অ্যামিকাস কিউরি নিযুক্ত করা হলো। এর আগে অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে নিযুক্ত হয়েছিলেন পিএস নরসিমহা, যিনি নিজেই এখন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে উন্নীত হয়েছেন।

লোধা কমিটির সুপারিশ এবং সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সংবিধানে পরিবর্তন হয়েছিল কয়েক বছর আগেই। নিয়ম অনুযায়ী বোর্ডের কোনও পদাধিকারী সর্বাধিক ৯ বছর এবং টানা ৬ বছর পদে থাকতে পারবেন। এরপর তিন বছর বাধ্যতামূলক কুলিং অফে যেতে হবে সেই পদাধিকারী ব‍্যক্তিকে। তিন বছর পর ফের বোর্ডের পদাধিকারী হতে পারবেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি। তবে রাজ্য সংস্থা এবং ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড মিলিয়ে ৯ বছরের বেশি নয়। আর সেক্ষেত্রে বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বিসিসিআইতে যাওয়ার আগে বাংলা ক্রিকেট সংস্থার সভাপতির পদে ছিলেন। দুটি মিলিয়ে তাঁর টানা ছ’বছরের সময়সীমা পেরিয়ে গিয়েছে। একই কথা প্রযোজ্য বোর্ড সচিব জয় শাহর ক্ষেত্রেও। তিনিও গুজরাত ক্রিকেট সংস্থার পদে ছিলেন।

আরও পড়ুন:IFA: বাগানকে জোড়া চিঠি আইএফএ-র

 

Previous articleদেশের প্রথম আদিবাসী মহিলা রাষ্ট্রপতি হলেন দ্রৌপদী মুর্মু