বিজেপি শকুনের রাজনীতি করছে, তোপ কুণালের

শান্তিনিকেতনের ঘটনা ব্যক্তিস্তরের কুৎসিত একটি ঘটনা, যার সঙ্গে সামগ্রিক আইনশৃঙ্খলার কোনও যোগাযোগ নেই। সেখানে কেন তারা যাচ্ছেন রাজনীতি করতে? গ্রামবাসীরা চাইছেন না কোনও দলের কোনও নেতা-নেত্রী সেখানে যান। তাই পুলিশ আটকে দিয়ে ঠিক করেছে।

বিজেপি অন্য কিছু না পেরে শকুনের রাজনীতি করছে। শান্তিনিকেতনে শিশু মৃত্যুর ঘটনা অবশ্যই মর্মান্তিক, কিন্তু এর সঙ্গে পুলিশ প্রশাসনের কোনও যোগ নেই। অথচ সেটা নিয়ে রাজনীতি করছে বিজেপি। শিশুটির পরিবারের লোকজনও দেখছেন যে ঘটনাটা ঘটে যাবার পর তারা যা চাইছেন পুলিশ সাধ্য মতো করছে এবং তাদের দ্বারা সন্তুষ্ট। গ্রামবাসীরাও তো স্পষ্ট জানিয়েছেন যে তারা রাজনীতি চান না।
কুণাল বলেন,বিজেপি একটা দেউলিয়ার রাজনীতি করছে। ওই শোকসন্ত্প্ত পরিবারের কাছে গিয়ে রাজনীতি করছে, সেই গ্রামে গিয়ে রাজনীতি করছে। স্বাভাবিকভাবেই গ্রামবাসীরা রেগে গিয়েছেন।তিনি স্মরণ করিয়ে দেন, যোগীর পুলিশ কোন পুষ্পস্তাবক দিয়ে বিরোধীদের স্বাগত জানিয়েছিল সুকান্ত মজুমদার একটু জেনে নেবেন। শান্তিনিকেতনের ঘটনা ব্যক্তিস্তরের কুৎসিত একটি ঘটনা, যার সঙ্গে সামগ্রিক আইনশৃঙ্খলার কোনও যোগাযোগ নেই। সেখানে কেন তারা যাচ্ছেন রাজনীতি করতে? গ্রামবাসীরা চাইছেন না কোনও দলের কোনও নেতা-নেত্রী সেখানে যান। তাই পুলিশ আটকে দিয়ে ঠিক করেছে।
কুণাল বলেন, বিজেপি নেতাদের কোনও জনসংযোগ নেই, পাড়ায় কোনও যোগাযোগ নেই, সংগঠন নেই। সেই কারণে তাদেরকে দুর্গাপুজো করার জন্য হল ভাড়া করতে হয়। বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী টুইট করে ভুয়ো ছবি ছড়ায় বলে তানা অভিযোগ করেন। একটা অন্য রাজ্যের মিড ডে মিলের ছবি দেখিয়ে শুভেন্দু যোগী রাজ্যের ছবি বলে চালানোর চেষ্টা করেছেন।
ডিএ নিয়ে হাইকোর্ট বৃহস্পতিবার যে রায় দিয়েছে সে প্রসঙ্গে এদিন কুণাল বলেন, প্রাপ্য টাকা পাচ্ছে না বাংলা। বাংলার যে প্রাপ্য এতগুলো টাকা সেটা রীতিমতো আটকে রেখেছে কেন্দ্র। বাংলার যেটা পাওনা ছিল সেটা দিচ্ছে না কেন্দ্র। আগে সেটা দিক। তার ওপর বিজেপি নেতারা বলছেন চিঠি দিচ্ছি টাকা দেওয়া বন্ধ করুন।

Previous articleএকম‍্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ পকেটে, ম‍্যাচ জিতে উচ্ছসিত হরমনপ্রীত