মাথা মুড়িয়ে শেষরক্ষা হল না, পুলিশের জালে রায়গঞ্জ গৃহবধূ খু*নে মূল অভিযুক্ত

সম্পর্কের টানাপোড়েন থেকেই ওই খুন বলে প্রথম থেকেই সন্দেহ করছিল পুলিশ। বাড়িতে একা থাকার সুযোগ নিয়ে গলার নলি কেটে সুপ্রিয়া দত্তকে খুন করে প্রবাল।

বেশভূষা বদলেও শেষরক্ষা হল না। রায়গঞ্জের(Raiganj) গৃহবধূ খু*নের ঘটনায় অবশেষে পুলিশের (Police)জালে মূল অভিযুক্ত প্রবাল সরকার (Prabal Sarkar)। ঘটনার পর থেকেই পুলিশের চোখে ধুলো দিতে বারবার আস্তানা বদল করতো সে। যাতে কেউ চিনতে না পারে তার জন্য মাথার চুল কামিয়েছিল। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। মোবাইল ফোনের টাওয়ার লোকেশন ট্র্যাক (Tower location track) করে তাকে আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটা থেকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

প্রবালের কাছে থেকে নিহত সুপ্রিয়া দত্তের ২টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। যে বাইকে চড়ে প্রবাল খু*ন করতে এসেছিল সেটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ। খুনের পরই ওই মোবাইল দুটি নিয়ে চম্পট দেয় প্রবাল।

সম্পর্কের টানাপোড়েন থেকেই ওই খু*ন বলে প্রথম থেকেই সন্দেহ করছিল পুলিশ। বাড়িতে একা থাকার সুযোগ নিয়ে গলার নলি কেটে সুপ্রিয়া দত্তকে খু*ন করে প্রবাল। প্রাথমিক তদন্তে পুলিসের সন্দেহ হয়েছিল কোনও পরিচিত ব্যক্তি ওই খু*ন করে থাকতে পারে। সেই রাস্তাতেই হেঁটে পুলিশ জানতে পারে প্রবালের নাম। কারণ সুপ্রিয়া দত্তের সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক যুবকের যোগাযোগ হয়েছিল বলে জানতে পারে পুলিশ। তদন্তে নেমে পুলিশ সিসিটিভির ফুটেজ দেখে আততায়ীকে চিহ্নিত করার চেষ্টা করে। ফুটেজে প্রবালকে দেখা যায়। পরে তার মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন ট্র্যাক করে দেখা যায় ঘটনার দিন রায়গঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাফেরা করেছে প্রবালের মোবাইল ফোন। পুলিশ তদন্তে নেমে দেখে সুপ্রিয়ার দুটি মোবাইল ও প্রবালের মোবাইলটি রায়গঞ্জ থেকে ১৪ কিলোমিটার দূরে বিলাসপুর এলাকায় একসঙ্গে সুইচড অফ হয়। সেখান থেকেই পুলিশ নিশ্চিত হয়ে যায় খু*নি প্রবাল সরকারই। আর খু*নি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার পর থেকেই তার খোঁজে হন্যে হয়ে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ।

 

Previous articleনিউজিল্যান্ড ম‍্যাচের আগে নেতা হার্দিকের প্রশংসায় লক্ষণ