ইন্দো-বাংলাদেশ মৈত্রী সাইকেল যাত্রার সূচনায় এসে রেলমন্ত্রীকে তুলোধনা সুব্রতর

ভাষা শহীদ দিবসে বাংলাদেশের উদ্দেশে ভাষা সূত্র সাইকেল যাত্রার সূচনা হলো। কলকাতা থেকে বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে শেষ হবে এই দুই দেশের মেলবন্ধন সাইকেল যাত্রা। ভালোবাসার দিন থেকে শুরু করে শহীদ দিবসের দিন, প্রায় ৮ দিন ও ৮রাতে অতিক্রম করে ২১ জন সাইকেল আরোহী বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা দিলেন। তাঁদেরকে উৎসাহ দিতে কলকাতা প্রেস ক্লাবে হাজির ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় ও লক্ষীরতন শুক্লা।

ভারত ও বাংলাদেশ, দুই প্রতিবেশী ও বন্ধু রাষ্ট্রের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন আরও দৃঢ় করতে ভাষা সূত্রের সাইকেল র‍্যালি। এবং এই সম্প্রীতি যাত্রা যাদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে, তাঁরা দুই রাষ্ট্রের দুই উজ্জ্বল নক্ষত্র – পন্ডিত ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। ”বাংলা কখনো হয় না ভাগ”- বাংলা ভাষার প্রতি ভালোবাসা নিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আগেই ৫০০ কিলোমিটারের এই সম্প্রীতি যাত্রা প্রবেশ করবে গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে। এই সাইকেল যাত্রার শুভ সূচনায় উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী লক্ষীরতন শুক্লা ও সুব্রত মুখোপাধ্যায়। ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রীর বার্তা নিয়ে এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দেওয়ার জন্য সাইকেল আরোহীদের শুভেচ্ছা জানান তাঁরা।

এই অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে সুব্রতবাবু রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়ালের অভিযোগকে নস্যাৎ করে পাল্টা দাবি জানান, রাজ্য সরকার সবসময় কেন্দ্রকে সাহায্য করে। কারণ, রাজ্যে কোনও প্রকল্প হলে রাজ্যের মানুষই উপককৃত হবে। তবে গতকাল রেল দফতরে যে কার্যকলাপ করেছে সেটা অরুচিকর। এটা আমাদের সংস্কৃতি ও পরম্পরার বিরোধী। মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ করা হল কী হল না, তাতে কিছুই আসে যায় না। কিন্তু তারা তাদের সংস্কৃতি ও তাদের রুচির পরিচয় দিয়েছেন।