মহামারির জের, কামাখ্যায় অম্বুবাচীর অন্য ছবি

অতিমারির দাপট পাল্টে দিয়েছে চেনা ছবি। প্রতিবছরের মতো লক্ষ লক্ষ মানুষের সমাগম নেই। খাঁ খাঁ করছে মন্দির চত্বর। এই ছবি মেলাতে পারছেন না পুরোহিত থেকে মন্দির কর্তৃপক্ষ।

মহামারির হাত থেকে রক্ষা পেতে চলতি বছর অম্বুবাচী উপলক্ষ্যে অসমের কামাখ্যা মন্দিরে ভক্ত সমাগম হয়নি। তবে প্রথা মেনে বন্ধ হয়েছে দেবী মন্দিরের দরজা। সোমবার থেকেই শুরু হয়েছে অম্বুবাচী। চলবে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। মনে করা হয়, এই সময় দেবী রজঃস্বলা হন। গোটা দেশেই অম্বুবাচী পালন করা হয়।
অসমে নীলাচল পর্বতের উপর কামাখ্যা মন্দির। যা ৫১টি সতী পীঠের অন্যতম। বছরের বিভিন্ন সময় কামাখ্যা মন্দির দর্শন করেন পুণ্যার্থীরা। তবে অম্বুবাচী সময় এই মন্দিরের চিত্র পাল্টে যায়। দেশ-বিদেশ থেকে মানুষের ঢল নামে মন্দিরে। অম্বুবাচী সময় যে মেলা বসে, তাকে পূর্ব ভারতের বৃহত্তম ধর্মীয় জমায়েত বলা হয়।
সোমবার সকাল ৭টা ৫৪ মিনিটে অম্বুবাচী শুরু হয়েছে। ২৫ জুন বৃহস্পতিবার রাত ৮টা ১৮ মিনিটে অম্বুবাচী ছাড়বে।
চলতি বছর শুধুমাত্র মন্দিরের পুরোহিতরা অম্বুবাচী নিয়ম পালন করবেন। তিন দিন ধরে চলবে এই প্রথা। গর্ভগৃহের বাইরে থেকে শুধুমাত্র ফল দিয়ে পুরোহিতরা উপাসনা করবেন। চতুর্থ দিন দেবীর স্নান ও পুজো সম্পন্ন হলে দেবীকে দর্শন করার অনুমতি মেলে।