সব জল্পনা উড়িয়ে তৃণমূলেই সেই ছত্রধর মাহাতো, প্রার্থীও হবেন ?

জল্পনা ছিলো অনেকদিন ধরেই যে তিনি আসলে তৃণমূলি-ই ৷

গোপীবল্লভপুর ১নম্বর ব্লকের হাটিবাড়ি এলাকায় ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের এক দলীয় সভায় হাজির হয়ে বুধবার সেই ধন্দ কাটিয়ে দিলেন জঙ্গলমহলের বিতর্কিত পুরুষ ছত্রধর মাহাতো ৷

তৃণমূলের ওই কর্মীসভায় হাজির থেকে পুলিশি সন্ত্রাস বিরোধী জনসাধারণ কমিটির প্রাক্তন নেতা ছত্রধর মাহাতো বার্তা দিলেন, জঙ্গলমহলের রাজনীতিতে তিনি সক্রিয়ভাবেই ফিরছেন৷

এদিন গোপীবল্লভপুর ব্লকের সাতমা গ্রামের ৩০টি পরিবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করে৷ আর তাদের হাতে তৃণমূলের দলীয় পতাকা তুলে দেন ছত্রধর মাহাতো-ই।

ছত্রধর এদিন বলেছেন, “আমাদের দল বা তৃণমূল কংগ্রেস এখানে অনেকটা পিছিয়ে আছে। আজকের এই উৎসাহ দেখে আমার মনে হয় পিছিয়ে পড়া বলে কিছু হয় না। কারণ মানুষই গড়তে পারে, তৈরি করতে পারে , মানুষই পরিবর্তন আনতে পারে।”

ছত্রধর মাহাতো-র এই “আমাদের দল” কথাতেই স্পষ্ট হয়েছে তিনি এখন তৃণমূলের একজন নেতা অথবা কর্মী।

প্রায় ১০ বছর জেলবন্দি থাকার পর চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি মুক্ত হয়ে বাড়ি ফেরেন ছত্রধর মাহাতো। সেদিন ছত্রধর বলেছিলেন তিনি এই মুহূর্তে সক্রিয় রাজনীতিতে যোগ দিচ্ছেন না৷

কিছুদিন আগে ছত্রধরের স্ত্রী নিয়তি মাহাতো পশ্চিমবঙ্গ সরকারের নারী ও সমাজ কল্যাণ দফতরের কমিটির স্থায়ী সদস্য হিসেবে নিযুক্ত হন।

এদিন ছত্রধর মাইকের সামনে দাঁড়িয়ে বলেন, “আজকের গোপীবল্লভপুর দেখে খুব ভালো লাগল। ২০১১ সালে বামফ্রন্ট জামানা শেষ করে আপনারাই বিপুল সংখ্যা নিয়ে এখানে তৃণমূল কংগ্রেসকে প্রতিষ্ঠা করেছেন। দীর্ঘ বাম জামানার ৩৪ বছর আপনারা লড়াই করেছেন৷

এজন্য গোপীবল্লভপুরের মানুষকে আমি কুর্নিশ জানাই।” তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে ছত্রধরের বক্তব্য, “আমাদের এখানে কিছু কিছু সমস্যা আছে। নব্য তৃণমূল ও পুরোনো তৃণমূল। এদের মধ্যে একটা সংঘাত। কিন্তু আমি বলব এটা কিছু নয়। কারণ যাঁরা পুরোনো দিনের তৃণমূল কংগ্রেসকে শ্রম দিয়েছিল, রক্ত ঝরিয়েছে, পার্টিটাকে ধরে রেখেছে। বর্তমানে যাঁরা এসেছেন তাঁরা পার্টিটাকে সমৃদ্ধশালী করেছেন।’ এত কিছু বললেও আসলে
আনুষ্ঠানিক ভাবে ছত্রধর মাহাতো নিজেই এখনও তৃণমূলে যোগ দেননি।

অথচ তিনিই বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিতে আসা কর্মীদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দিলেন৷ তাঁর পাশেই বসেছিলেন স্ত্রী নিয়তি মাহাতো। ছিলেন গোপীবল্লভপুর ১ব্লক তৃণমূলের সভাপতি শঙ্কর হাঁসদা, জেলা টিএমসিপির সভাপতি সত্যরঞ্জন বারিক, ব্লকের যুব নেতা সত্যকাম পট্টনায়েক-রা৷

এদিন তৃণমূলের কর্মী সভায় হাজির থাকার পর জঙ্গলমহলে শুরু হয়েছে নতুন জল্পনা। একুশের ভোটে জঙ্গলমহলের কোনও আসন থেকেই তৃণমূলের প্রার্থী হচ্ছেন ছত্রধর মাহাতো৷ এই জল্পনা কতখানি ঠিক, ভবিষ্যৎ- ই বলবে৷