নিজের লড়াই শেষ, অঙ্গ দিয়ে একাধিক মানুষের প্রাণ বাঁচালেন যুবক!

গিয়েছিলেন কাজে। এক চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করতে। ফেরার পথে ভয়াবহ দুর্ঘটনা। হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও শেষ রক্ষা হয়নি । ব্রেন ডেথ হয়ে যায় ভাটপাড়ার বাসিন্দা    পেশায় মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ  বছর একত্রিশের সংগ্রাম ভট্টাচার্যের। চিকিৎসকরা জানানোর পরই সংগ্রামের অঙ্গ দানের সিদ্ধান্ত নেয় পরিবার।

সংগ্রামের পরিবার সিদ্ধান্ত নেয়, তাঁর অঙ্গদান করা হবে। পরিবারের সম্মতি মিলতেই যুদ্ধকালীন তৎপরতায় শুরু হয়ে যায় অঙ্গ-গ্রহীতাদের খোঁজ। আগরতলার ৫৯ বছর বয়সী এক ব্যক্তির খোঁজ মেলে। তাঁর লিভারের প্রয়োজন ছিল। দ্রুত রাতের ফ্লাইটে তাঁকে নিয়ে আসা হয় কলকাতায়। লিলুয়ার ২৯ বছর বয়সী এক যুবককে রাতেই নিয়ে আসা হয় অ্যাপোলো হাসপাতালে। তাঁর কিডনির সঙ্গে ম্যাচ করেছে সংগ্রামের কিডনি। অন্য একটি কিডনি যাচ্ছে এসএসকেএম-এ। সেখানে এক ব্যক্তিকে রাতেই হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। হৃদযন্ত্র প্রতিস্থাপনে হচ্ছে আর এন টেগর হাসপাতালে এক ব্যক্তির শরীরে। চোখ ইতিমধ্যেই দান করা হয়েছে। এসএসকেএম হাসপাতালে স্কিন ব্যাঙ্কে সংগ্রামের ত্বক দান করার সম্মতি দিয়েছে পরিবার।