মহুয়ার ‘মর্যাদাহানির’ অভিযোগ খারিজ হাইকোর্টে, স্বস্তিতে বাবুল

হাইকোর্টের রায়ে স্বস্তিতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রের ‘মর্যাদাহানির’ তত্ত্ব খারিজ করল আদালত। একটি টেলিভিশন চ্যানেল আয়োজিত বিতর্কসভায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় তাঁর সম্পর্কে ‘মর্যাদাহানিকর’ মন্তব্য করেছেন বলে আলিপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মহুয়া। কিন্তু বুধবার কলকাতা হাইকোর্ট ‘মহিলার মর্যাদাহানি’র খারিজ করে দিল।

‘‘মহুয়া আপনি কি মহুয়ায় আছেন?’’ – ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি নিউজ চ্যানেলের বিতর্কসভায় কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদের দিকে এই বক্রোক্তি তুলে দিয়েছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। মাদক পানীয় হিসেবে পরিচিত মহুয়া। বিশেষ করে ভারতের আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে এর প্রচলন আছে। তাই বাবুলের ওই মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান মহুয়া মৈত্র। তাঁকে বাবুল ‘মত্ত’ বলতে চেয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। বাবুলের ওই মন্তব্যে এক জন মহিলার মর্যাদাহানি ঘটানোর শামিল বলেও অভিযোগ করেন তৃণমূল সাংসদ।

আলিপুর থানায় বাবুলের বিরুদ্ধে অভিযোগের ভিত্তিতে মুখ্য বিচারবিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের আদালত বাবুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি করে। এর পরেই বাবুল কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন এবং ‘মহিলার মর্যাদাহানি ঘটানো’র অভিযোগ খারিজ করার আর্জি জানান। হাইকোর্ট বাবুলের বিরুদ্ধে জারি হওয়া গ্রেফতারি পরোয়ানা স্থগিত করে। বুধবার রায়ে হাইকোর্ট জানাল, এক মহিলার মর্যাদাহানি ঘটিয়েছেন বলে যে অভিযোগ নিম্ন আদালতের মান্যতা পেয়ে গিয়েছিল, সেই অভিযোগ ঠিক নয়। তাকে এ দিন খারিজ করে দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট।

এই সিদ্ধান্তে উচ্ছ্বসিত গেরুয়া শিবির। তবে মহুয়া মৈত্র দেশের বাইরে থাকায় তাঁর কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি।