দীর্ঘদিন নিখোঁজ বিজেপি সাংসদ! থানায় মিসিং ডায়েরি তৃণমূল কর্মীদের

স্থানীয় মানুষ বলছেন, তাঁকে এলাকায় শেষবারের মতো দেখা গিয়েছে এ বছরের গোড়ার দিকে৷ তিনি গুরুতর অসুস্থ, নড়াচড়ার ক্ষমতাও নেই, এমনও নয়৷ তাহলে তিনি কোথায় ?

বেশ কিছুদিন ধরেই নিখোঁজ বর্ধমান দুর্গাপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া। বহু চেষ্টা করেও স্থানীয় মানুষ তাঁর দেখা পাচ্ছেন না৷ নিরুদ্দেশ আলুওয়ালিয়ার হদিশ পেতে এবার মিসিং ডায়েরি হলো থানায়৷

গত বৃহস্পতিবার ওই লোকসভা কেন্দ্রেরই প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ মমতাজ সংঘমিত্রা এলাকায় এক দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে গিয়েছিলেন৷ সেখানেই তিনি দলের কর্মীদের পরামর্শ দেন, “সাংসদ যখন ‘মিসিং’ তখন তাঁর নামে মিসিং-ডায়েরি করা দরকার ছিলো৷ এতে যদি সাংসদের খোঁজ মেলে৷”

এই পরামর্শ পেয়েই কাজটি সেরে ফেললেন তৃণমূল কর্মীরা৷ কোকওভেন থানায় বিজেপি সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়ার নামে মিসিং ডায়েরি করলেন তৃণমূল সমর্থকরা। থানাও মিসিং ডায়েরি নাকি লিপিবদ্ধ করেছে৷ এর পরই এই ডায়েরি নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে৷

তৃণমূলের পশ্চিম বর্ধমান জেলার সাধারণ সম্পাদক চন্দ্রশেখর বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘এলাকায় একের পর এক কারখানা রুগ্ন হচ্ছে, বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এলাকার মানুষ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে, এই বুঝি ফের বন্ধ হলো বাকি কলকারখানাও। বারবার সাংসদের খোঁজ করা হয়েছে, বিষয়টি নিয়ে দিল্লিতে কথা বলার জন্য৷
অথচ কোনও খোঁজই নেই সাংসদের। এলাকায় শেষ কবে তাঁর দেখা মিলেছে, কেউ বলতে পারছেন না। তাই বাধ্য হয়ে পুলিশের কাছে তাঁর নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার কথা জানালাম।’”

এদিকে, এই ডায়েরি প্রসঙ্গে আলুওয়ালিয়া বলেছেন, “এতদিন অভিযোগকারীরা কোনও আলোচনার জন্যই আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেননি৷ তাছাড়া, আমি কাউন্সিলর নই যে রোজ সকালে আমাকে এলাকায় ঘুরতে হবে৷ এতদিন বহু বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে সমাধান করেছি।” তিনি বলেছেন, “এই ডায়েরি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত”৷

আরও পড়ুন- রাজ্যপালের শব্দচয়ন সঠিক হওয়া প্রয়োজন: কাকে বার্তা দিলেন অমিত শাহ?