বাংলা চাও তো চির দেঙ্গে: শুভেন্দুকে চ্যালেঞ্জ করে মন্তব্য মদনের

ঝাড়গ্রামে দাঁড়িয়ে শুভেন্দু অধিকারী বিরুদ্ধে তীব্র কটাক্ষ এবং চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন তৃণমূল নেতা মদন মিত্র। বৃহস্পতিবার, আগাগোড়াই তাঁর ভাষণ ছিল আক্রমণাত্মক। প্রথম থেকেই কাঁথির অধিকারী পরিবারের বিরুদ্ধে সরব হন মদন মিত্র। তিনি বলেন, শুভেন্দু অধিকারী অভিযোগ করছেন যে মুষ্টিমেয় কিছু দক্ষিণ কলকাতার নেতাকে সব ক্ষমতা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অথচ শুভেন্দুর বাবা, দাদা, ভাই- সবাই তৃণমূলের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। অথচ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির ১১ জন সদস্যের মধ্যে থেকে শুধুমাত্র দুজনই পদে আছেন।

এরপরে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ১০ বছরে সব ক্ষমতা ভোগ করেছেন শুভেন্দু। অথচ এখন বঞ্চনার অভিযোগ করছেন। ঝাড়গ্রামের মানুষ ‘বেইমান’কে ক্ষমা করবে না।

মদন মিত্র বলেন, “দলকে বলব কোন পদ দিতে হবে না শুধু সপ্তাহে একবার করে এসে আমি এই অঞ্চলের মানুষকে ট্রেনিং দিয়ে যাব। যাতে বেইমানকে এলাকায় ঢুকতে না দেয়। এরপরেই তিনি বলেন, একসময় বলা হত দুধ মাঙ্গো তো ক্ষির দেঙ্গে, কাশ্মীর মাঙ্গ তো চির দেঙ্গে। স্লোগানে একটু অন্যভাবে বলছি, দুধ চাও তো ক্ষির দেঙ্গে বাংলা চাও তো চির দেঙ্গে”।

তিনি প্রশ্ন তোলেন, কীভাবে তৃণমূকে কটাক্ষ করছেন শুভেন্দু অধিকারী? তাঁর বাবা এখনও তৃণমূলেই আছেন। মদন মিত্রের সভা ঘিরে উজ্জীবিত স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা।

আরও পড়ুন : গঙ্গারামপুরের সভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, কী বলছেন তিনি!

Advt