জাকিরকে খুন করতে পরিকল্পিত হামলা, সম্ভবত রিমোটের সাহায্যে বিস্ফোরণ: মুখ্যমন্ত্রী

মন্ত্রী জাকির হোসেনকে (Zakir Hossain)খুন করতে বড় ধরনের পরিকল্পনা করা হয়েছিল- বৃহস্পতিবার সকালে এসএসকেএমে (SSKM)তাঁকে দেখতে গিয়ে এই অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Benarjee)। তিনি বলেন, রিমোটের (Remote) সাহায্যে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে বলে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে মনে হচ্ছে। এদিন সকালে এসএসকেএমে গিয়ে জাকির হোসেনের পাশাপাশি অন্যান্য আহতদের সঙ্গে দেখা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

হামলার ঘটনাটিকে ভয়াবহ উল্লেখ করে মমতা বলেন, এটি পরিকল্পিত হামলা বলেই মনে হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, জাকির কোন প্ল্যাটফর্মে যাবেন, কখন ট্রেন ধরবেন, তার সব আগাম আগাম ছিল দুষ্কৃতীদের কাছে। যাঁরা জাকিরের সঙ্গে ছিলেন তাঁরা জানিয়েছেন, রিমোট কন্ট্রোলে বিস্ফোরণ ঘটানো হতে পারে। জাকিরের সঙ্গে ওর ভাগ্নে ছিলেন। তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে এই কথা জানান।

ঘটনায় গুরুতর আহতদের পাঁচ লক্ষ টাকা এবং সামান্য আহতদের এক লক্ষ টাকা সাহায্য দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। একই সঙ্গে হামলায় যাঁদের অঙ্গহানি হয়েছে, তাঁদের কৃত্রিম অঙ্গের ব্যবস্থা রাজ্য সরকার করবে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

রেলের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, কেন ওখানে রেল পুলিশ ছিল না? এর দায় রেল এড়াতে পারে না বলে জানান তিনি।

শুধু মুখ্যমন্ত্রী নন, তৃণমূলের তরফেও একই অভিযোগ করা হয়েছে। সকালে জাকির হোসেনকে হাসপাতালে দেখতে যান দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ (Kunal Ghosh)। তিনি প্রশ্ন তোলেন, স্টেশন চত্বর কেন অন্ধকার ছিল? স্টেশনে আরপিএফ ছিল না কেন? হামলার নেপথ্যে পরিকল্পিত চক্রান্তের অভিযোগ তোলেন কুণালও।

ইতিমধ্যেই রেলও ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেছে। রেলের দাবি, তদন্তও শুরু হয়েছে। রাজ্য সরকারের তরফে তদন্তে নেমেছে সিআইডি (CID)। রাজ্যে গোয়েন্দা দফতরের একটি দল নিমতিতার ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।