প্রয়াত কিংবদন্তি অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান

খায়রুল আলম, ঢাকা

চলে গেলেন বাংলাদেশি চলচ্চিত্র জগতের প্রবাদপ্রতিম ব্যক্তিত্ব জনপ্রিয় অভিনেতা, পরিচালক, কাহিনীকার, চিত্রনাট্যকার- এটিএম শামসুজ্জামান। সেদেশের সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর নিজের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় ভুগছিলেন এটিএম শামসুজ্জামান। শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে গত বুধবারও তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার বিকালে অবশ্য তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এটিএম শামসুজ্জামানের পুরো নাম আবু তাহের মোহাম্মদ শামসুজ্জামান। অভিনয়ে অবদানের জন্য লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার সহ মোট ছয়বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন শামসুজ্জামান। আমি কে (১৯৮৭), ম্যাডাম ফুলি (১৯৯৯), চুড়িওয়ালা (২০০১), ও মন বসে না পড়ার টেবিলে (২০০৯), চোরাবালি (২০১২)-র মতো ছবিতে তাঁর অভিনয় আজও ভুলতে পারেনি দর্শকরা। বাংলাদেশের ছবি ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁর অবদানের জন্য  ২০১৫ সালে শামসুজ্জামানকে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান, একুশে পদকে ভূষিত করা হয়। তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া চলচ্চিত্র জগতে।

তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এক বিবৃতিতে বলেছেন, “এটিএম শামসুজ্জামানের মৃত্যু দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। বাংলাদেশে অসাম্প্রদায়িক চেতনার বিকাশে তার অবদান মানুষ শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।”  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার শোকবার্তায় বলেছেন, “জনপ্রিয় এই শিল্পী তার অসাধারণ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে দেশবাসীর হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন।”

আরও পড়ুন- রবিবার বিজয় হাজারে ট্রফিতে খেলতে নামছে বাংলা, প্রথম ম‍্যাচে অনুষ্টুপদের মুখোমুখি সার্ভিসেস

Advt