আইন আইনের পথে চলবে, মাদক-সহ বিজেপি নেত্রীর গ্রেফতারে মন্তব্য দিলীপের

আইন আইনের পথে চলবে। দোষী কি-না সেটা আদালতে (Court) প্রমাণ হবে। বিজেপি (BJP) আইনের শাসনের কথাই বলে। দলের খুব পরিচিত যুব মোর্চার নেত্রী পামেলা গোস্বামী (Pamela Goswami) ও তার সঙ্গী-সহযোগী বিজেপি নেতা প্রবীণ দে’র কোকেন-সহ (Drug) গ্রেফতার (Arrest) প্রসঙ্গে এমনই প্রতিক্রিয়া দিলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh). তবে তিনি যোগ করে বলেন, “যদি চক্রান্ত করে আমাদের কাউকে ফাঁসানো হলে, আন্দোলনে নামব।”

পামেলা গোস্বামী

অন্যদিকে, কোকেন কাণ্ডে হুগলির সাংসদ তথা রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক লকেট চট্টোপাধ্যায় (Locket Chatterjee) তাঁর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়াতে জানিয়েছেন, পুরো বিষয়টি তাঁর ঠিক জানা নেই। তবে অতীতে বিজেপিকে বিপাকে ফেলার জন্য রাজ্য সরকার মিথ্যা মামলা দিয়েছে। সঠিক তদন্ত হোক, তদন্ত না করে কাউকে দোষী বলে দেওয়া ঠিক নয় বলেই মনে করেন লকেট। তবে তিনিও জানান, আইন আইনের পথে চলবে।

বিজেপির সহ সভাপতি মুকুল রায়ের সঙ্গে পামেলা গোস্বামী

আরও পড়ুন-শাহি-সভায় বাংলা ভাষায় প্রয়োগ দেখে তাজ্জব গুণীজনরা

এদিকে অসমর্থিত সূত্রের খবর, কোকেন কাণ্ডে পামেলা ও প্রবীনের বিষয়ে গেরুয়া শিবির আভ্যন্তরীণ ভাবে খোঁজ নেওয়া শুরু করেছে। দলের এই দুই যুব নেতা-নেত্রী সত্যি মাদক পাচারের সঙ্গে যুক্ত কি-না, তা জানার চেষ্টা চলছে। তবে এখনও পর্যন্ত বিষয়টি যেখানে দাঁড়িয়ে, সেখানে রাজ্য বিজেপি চরম অস্বস্তিতে পড়েছে বলেই জানা গিয়েছে। কারণ, বিজেপির কেন্দ্রীয় ও রাজ্য শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বেশ ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল পামেলার। এই যুবনেত্রী মুকুল রায়, সৌমিত্র খাঁ, লকেট চট্টোপাধ্যায়দের খুব কাছের ছিলেন। বিভিন্ন কর্মসূচিতে শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গেই দেখা গিয়েছে পামেলাকে। যুবমোর্চার সর্বভারতীয় সভাপতি তেজস্বী সূর্যের সঙ্গেও দেখা গিয়েছে পামেলাকে। শীর্ষ নেতৃত্বের বলয়ের মধ্যে থাকার সুবাদে গত ২৩ জানুয়ারি ভিক্টরিয়াতে নেতাজির
জন্ম জয়ন্তীতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকারি অনুষ্ঠানে মুষ্টিমেয় অতিথিদের মধ্যে আমন্ত্রিত ছিলেন কোকেন কাণ্ডে ধৃত পামেলা গোস্বামী।

পামেলা গোস্বামীর সঙ্গে বিজেপির যুবমোর্চার সর্বভারতীয় সভাপতি তেজস্বী সূর্যে

উল্লেখ্য, গতকাল শুক্রবার কলকাতার নিউ আলিপুর থেকে কয়েক লক্ষ টাকার কোকেন-সহ পুলিশ হাতেনাতে গ্রেফতার করে বিজেপির যুবমোর্চার পর্যবেক্ষক ও হুগলি জেলার সাধারণ সম্পাদক পামেলা গোস্বামী। বিপুল পরিমাণ নিষিদ্ধ মাদক পাওয়া গিয়েছে নেত্রীর গাড়িতে। গ্রেফতার করা হয় তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী এবং বিজেপি নেতা প্রবীর কুমার দে-কে। নিউ আলিপুরের রাস্তায় পুলিশ তাঁদের গাড়ি থামিয়ে তাতে তল্লাশি চালিয়ে পামেলার ব্যাগ ও গাড়ি থেকে ওই ১০০ গ্রাম কোকেন উদ্ধার করে। যার বাজার মূল্য প্রায় কয়েক লক্ষ টাকা। বিজেপির যুবমোর্চার পর্যবেক্ষক ও হুগলি জেলার সাধারণ সম্পাদক হওয়ার সুবাদে কেন্দ্রীয় সুরক্ষা পান পামেলা গোস্বামী। এদিন তাঁর সঙ্গে এক কেন্দ্রীয় জওয়ান ছিলেন যিনি নিরাপত্তারক্ষী হিসাবে।

 

বিধানসভা ভোটের আগে যখন রাজ্যে তৃণমূল-বিজেপি দ্বন্দ্ব চরমে, ঠিক সেই সময়ই বিজেপি-কে চরম অস্বস্তিতে ফেললেন তাদের রাজ্যস্তরের নেত্রী পামেলা। জানা গিয়েছে, পামেলা গোস্বামী ও তাঁর সঙ্গী প্রবীর কুমার দে, নিউ আলিপুরের এনআর স্ট্রিটে একটি কফি শপের বাইরে দীর্ঘদিন ধরেই মাদক সরবরাহ করতেন। সেই খবর ছিল নিউ আলিপুর থানার কাছে। আজ, শনিবার তাদের আদালতে তোলা হবে।

পামেলা গোস্বামীর সঙ্গী প্রবীর কুমার দে

Advt