ধাক্কা রাজ্যের, আনিসুর রহমানের মামলা প্রত্যাহারের নির্দেশ খারিজ করল হাইকোর্ট

তৃণমূল ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন বিজেপিতে। সেই সময় তৃণমূল কর্মী কোরবান শাহ খুনের মামলায় নাম জড়ায় ‘দলবদলু’ আনিসুর রহমানের (anisur rahman)। যেতে হয় জেলে। এরপর বিজেপি ছেড়ে ফের তৃণমূলমুখী হতেই মুকুল রায়ের ঘনিষ্ঠ পূর্ব মেদিনীপুরের নেতা আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে করা খুনের মামলা প্রত্যাহার করতে উদ্যোগী হয় রাজ্য সরকার। তমলুক আদালতে রাজ্যের সেই নির্দেশ গৃহীত হয়েছিল। কিন্তু ফের সেই নির্দেশ খারিজ হয়ে গেল কলকাতা হাইকোর্টে (Calcutta high court)। এই ঘটনায় ধাক্কা খেল রাজ্য প্রশাসনের উদ্যোগ। রাজ্যের নির্দেশ খারিজ করে হাইকোর্টের বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য বলেন, এই কলকাতা হাইকোর্টেই একাধিকবার আনিসুর রহমানের জামিনের আবেদনের বিরোধিতা করেছে রাজ্য সরকার। তাহলে এখন হঠাৎ কী হল যে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করতে চাইছে তারা?

প্রসঙ্গত, তৃণমূল কর্মী কোরবান শাহের খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত ছিলেন মুকুল ঘনিষ্ঠ আনিসুর। রাজ্য সরকার তাঁর বিরুদ্ধে মামলা তুলতে উদ্যোগী হতেই কোরবান শাহের পরিবারের আবেদনের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাজ্যের নির্দেশ খারিজ করার রায় দিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য। সেইসঙ্গে ফের আনিসুরকে গ্রেফতার করারও নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি। আদালতের এই রায় ভোটের মুখে রাজ্য সরকার ও তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে বড় ধাক্কা বলে মনে করা হচ্ছে।

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি রাজ্য সরকার আনিসুরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত তমলুক আদালতে পেশ করলে মামলা প্রত্যাহারে সম্মতি দেন বিচারক। এরপর তমলুক হাসপাতালে ভর্তি আনিসুরকে মুক্তি দেয় জেল কর্তৃপক্ষ। আনিসুরকে মালা পরিয়ে নিয়ে রওনা দেন তাঁর অনুগামীরা। এদিকে ততক্ষণে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন কোরবান শাহের পরিজনরা। তাঁদের দাবি, আনিসুর মুক্তি পেলে কোরবান শাহ হত্যার কোনও বিচার হবে না। উলটে তাঁদের জীবনের ঝুঁকি বাড়বে। সওয়াল জবাব শুনে বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য বলেন, কলকাতা হাইকোর্টেই একাধিকবার আনিসুর রহমানের জামিনের আবেদনের বিরোধিতা করেছে রাজ্য সরকার। এখন হঠাৎ কী হল যে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করতে চাইছে তারা? হাইকোর্টের রায়ে রাজ্য সরকারের নির্দেশ ও নিম্ন আদালতের রায় বাতিল বলে ঘোষণা করেন বিচারপতি। স্থগিতাদেশ দেন এই মামলার শুনানিতে। সেইসঙ্গে বলেন, আনিসুরকে জেল থেকে মুক্তি দেওয়া হয়ে থাকলে তাঁকে অবিলম্বে গ্রেফতার করতে হবে।

আরও পড়ুন- ‘কেষ্টর ঢাক’, ‘খেলা হবে’ : ভোটের আগে ‘রাজনৈতিক’ মিষ্টিতে ছয়লাপ বাংলা

Advt