‘প্রত্যেকে ৫০ জনকে ফোন করে বলুন BJP-কে ভোট দিতে’, কর্মী-সমর্থকদের ‘হোম টাস্ক’ শাহের

নির্বাচনের একেবারে শুরু থেকেই ‘প্রচণ্ড বহুমত’-এর হুংকার দিয়েছে বিজেপি(BJP)। বাংলায়(Bengal) জনসমর্থন আদায়ে চেষ্টার কোনো ঘাটতি দেখা হয়নি গেরুয়া শিবিরের তরফে। মোদি-নাড্ডা-শাহের পাশাপাশি অর্ধেক মন্ত্রিসভা সহ একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে উড়িয়ে আনা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গে প্রচারের জন্য। তবে এতকিছুর পরও বঙ্গবাসীর মন পাওয়া সম্ভব হয়েছে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দিহান বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বরা। এমন পরিস্থিতিতে দ্বিতীয় দফা নির্বাচনের পর ফের নয়া টাস্ক দিলেন অমিত শাহ(Amit Shah)। শুক্রবার উত্তরবঙ্গের কালচিনিতে জনসভায় উপস্থিত হয়ে অমিত শাহ জানালেন, ‘আপনারা প্রত্যেকে নিজের ফোন থেকে ৫০ জনকে ফোন করে বলুন বিজেপিকে ভোট দেওয়ার জন্য।’ শেষবেলায় বিজেপির এই হোমটাস্ক স্বাভাবিকভাবে সন্দেহ তৈরি করছে কর্মী-সমর্থকদের মনে।

রাজ্য প্রথম দুই দফা নির্বাচনের পর বিজেপি ৫০ টি আসন পেতে চলেছে বলে জানিয়ে দিয়েছেন অমিত শাহ। নরেন্দ্র মোদী(Narendra Modi) জানিয়েছেন এবার বাংলায় ২০০ পার হতে চলেছে। এমন ‘ভবিষ্যৎবাণী’র মাঝেই শুক্রবার কালচিনির জনসভায় উপস্থিত হয়েছিলেন অমিত শাহ। শাহের এই জনসভায় অবশ্য খুব একটা ভীড় চোখে পড়েনি। ওই জনসভা থেকে একের পর এক প্রতিশ্রুতি বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি অমিত শাহ জানান, ‘এখানে উপস্থিত রয়েছেন বড়জোর ৫০ হাজার মানুষ। এই সামান্য মানুষকে দিয়ে দিদিকে সরানো সম্ভব নয়। আপনাদের প্রত্যেকের কাছে মোবাইল ফোন রয়েছে। ওই ফোন থেকে আপনারা আপনাদের আত্মীয়স্বজন কে ফোন করুন। কাকা জ্যাঠা ভাই-বোন দিদি পিসি এমন ৫০ জনকে ফোন করুন। এবং তাদের কাছে অনুরোধ করুন বিজেপিকে ভোট দেওয়ার জন্য।’

আরও পড়ুন:‘প্রথম দু’দফায় ৫০ টি আসন জিতছি’, ‘জোশ’ ধরে রাখতে সুর সপ্তমে শাহর

তবে যে বিজেপি ২০০ পারের হুমকি দিয়েছে, শেষ বেলায় সমর্থকদের কাছে তাদের এমন অনুরোধ কেন করতে হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে রাজনৈতিক মহলে। সূত্রের খবর, এদিনের জনসভায় গিয়ে ফাঁকা মাঠ দেখে হতাশ হয়েছেন অমিত শাহ। নির্বাচনে হার বা জিত যাই হোক না কেন কর্মী-সমর্থকদের উৎসাহ-উদ্দীপনায় যাতে কোনো ক্ষতি না হয় তার জন্য সব রকম ভাবে চেষ্টা চালানো হচ্ছে কেন্দ্র ও রাজ্য নেতৃত্বের তরফে। এমন পরিস্থিতিতে তৃতীয় দফায় কিছুটা হলেও যাতে মানুষ বিজেপি মুখে হয় তার জন্য আত্মীয় অপরিচিত দ্বারা বিজেপিকে ভোট দেওয়ার অনুরোধের পরিকল্পনা শাহের।

Advt