বয়াল-কাণ্ডে নির্বাচন কমিশনের ‘ক্লিন- চিট মমতাকে

নন্দীগ্রামের বয়াল-কাণ্ডে নির্বাচন কমিশনের ‘ক্লিন- চিট তৃণমূল প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে৷

বিজেপির (BJP) আনা অভিযোগ উড়িয়ে কমিশন শুক্রবার জানিয়েছে, “বৃহস্পতিবার বয়ালে মুখ্যমন্ত্রীর (CM MAMATA BANERJEE) উপস্থিতিতে বৃহস্পতিবার ভোটদান ব্যাহত হয়নি।” বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে (VIVEK DUBEY) দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের সদর দফতরে চিঠি দিয়ে একথাই জানিয়েছেন৷

নন্দীগ্রামের ভোটে সর্বাধিক অভিযোগ ছিলো বয়াল মক্তব বিদ্যালয় বুথ থেকেই৷ তৃণমূলের তরফে একধিক অভিযোগ জানিয়ে বলা হয় ভোটারদের ভয় দেখাচ্ছে বিজেপি। অবশেষে দুপুর ১টা নাগাদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেয়াপাড়ার বাড়ি থেকে বেরিয়ে সোজা যান বয়াল-এর ৭ নম্বর বুথে। বস্তুত ওখানে প্রায় দু’ঘন্টা ধর্নায় বসে যান তিনি৷ ওখান থেকেই ফোন করেন রাজ্যপালকে, চিঠি লেখেন কমিশনে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার সন্ধ্যে ৬ টার মধ্যে গোটা ঘটনার রিপোর্ট তলব করে কমিশন।

শুক্রবার সেই রিপোর্ট দিল্লিতে পাঠান বিবেক দুবে৷ তাতে তিনি জানিয়েছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন বয়াল-এর ৭ নং বুথে পা রাখেন, বাইরে তখন বিজেপি ও তৃণমূল অস্থির পরিস্থিতি তৈরি করে ফেলেছে৷ ওই সময় নিরাপত্তার প্রশ্নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বয়াল বিদ্যালয় থেকে বের করা সম্ভবপর ছিলো না।রিপোর্টে দুবে লিখেছেন, এই ঘটনায় বয়ালে ভোট পরিচালনায় সমস্যা হয়নি। IPS নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠীর বলিষ্ঠ ভূমিকার কথাও উল্লেখ করেছেন দুবে৷ এই নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠীকেই বাকি সময়ে সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার ভার দিয়ে বয়াল ছাড়েন মমতা।

ওদিকে মমতার ওই ধর্ণার সমালোচনা করেন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী ৷ তিনি বলেন, ‘ওখানে উনি কী করতে বসে আছেন?’ শুক্রবার কমিশনে গিয়ে বিজেপির এক প্রতিনিধিদলও একই অভিযোগ জানান৷ বলা হয়, বয়ালে মমতার উপস্থিতি ভোট প্রক্রিয়াকে শ্লথ করেছে।

আরও পড়ুন- নন্দীগ্রাম ছাড়ার আগে তৃণমূল কর্মীদের ঠিক কী বলেছিলেন মমতা?

কিন্তু বিবেক দুবের রিপোর্ট বিজেপির অভিযোগ নস্যাৎ করে দিয়েছে৷

Advt