সেদিন ঠিক কী ঘটেছিল শীতলকুচিতে? বেশ কিছু মিসিং লিঙ্ক নিয়ে ধন্দে কমিশন

শনিবার রাজ্যে চতুর্থ দফা নির্বাচনের দিন শীতলকুচিতে(ShitalKuchi) কেন্দ্রীয় বাহিনীর(Central force) গুলিতে চারজনের মৃত্যুর ঘটনায় ইতিমধ্যে উত্তাল হয়ে উঠেছে বঙ্গ রাজনীতি। উঠে আসছে নানা প্রশ্ন। স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে কমিশন। প্রাথমিকভাবে এই ঘটনার প্রেক্ষিতে একাধিক পদক্ষেপ নেওয়ার পর এবার ঘটনাস্থলের নমুনা খুঁটিয়ে দেখতে শুরু করলো নির্বাচন কমিশনের(election commission) আধিকারিকরা। আর সেখান থেকেই উঠে আসছে বেশ কিছু মিসিং লিঙ্ক।

জানা গেছে প্রত্যন্ত এলাকা শীতলকুচির জোড়পাটকির ১২৬ নম্বর বুথে সেদিন ওয়েব কাস্টিংয়ের সমস্ত ব্যবস্থা থাকা সত্বেও ঘটনার সময় তা অফলাইন ছিল। শুধু তাই নয়, অশান্তির সময় সিসিটিভি ক্যামেরাও ভাঙা হয়। যদিও গোটা ঘটনা রেকর্ড হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরায়। ক্যামেরা ভাঙার আগের মুহূর্ত পর্যন্ত কী হয়েছিল তা খতিয়ে দেখার কাজ চলছে। কমিশন আশা করছে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য এর মাধ্যমে হাতে আসবে।

আরও পড়ুন:কয়লাকাণ্ডে লালার শুনানি আরও দু’দিন পিছোল

পাশাপাশি ঘটনার পর রাজ্যের নির্বাচনী পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে যে রিপোর্ট পেশ করেছিলেন তাতে দাবি করা হয় সিআরপিএফের ওপর হামলা চালানোর চেষ্টা হয়েছিল। শুধু তাই নয় ইভিএম ছিনতাইয়ের চেষ্টা হয়। এমনকি বুকের ভেতর রক্তের চিহ্ন পাওয়া যায়। স্বাভাবিক ভাবেই এখান থেকে প্রশ্ন ওঠে তাহলে কি বুথের ভেতরেও তান্ডব চলেছিল? এখানে অবশ্য সিসিটিভি থেকে সমস্ত তথ্য প্রকাশ্যে না এলেও, কমিশন আশা করছে প্রিসাইডিং অফিসারের ডাইরি থেকে এই সমস্ত তথ্য পাওয়া যেতে পারে। আপাতত এই সমস্ত তথ্য অনুসন্ধানের উপর জোর দিয়েই গোটা ঘটনার তদন্তে নামছে নির্বাচন কমিশন।

Advt