দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের জন্য গাংনাপুরে মৃত বধূর দেহ তোলা হল কবর খুঁড়ে

কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে, গাংনাপুর থানার খাগড়াডাঙার কবরস্থান থেকে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সম্রাট বাগচী, তদন্তকারী অফিসার, ডেপুটি পুলিশ সুপার ডিআইবি শিমুল সরকার-সহ ওই মৃতার পরিবারের পক্ষের আইনজীবী বাবলু চক্রবর্তীর উপস্থিতিতে দেহটি তোলা হয়।

নদিয়ার (nadia) গাংনাপুরে (Gangnapur) বধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু। দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের (Post-mortem) জন্য দেহ তোলা হল কবর খুঁড়ে। কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court) নির্দেশে, গাংনাপুর (Gangnapur) থানার খাগড়াডাঙার কবরস্থান থেকে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সম্রাট বাগচী, তদন্তকারী অফিসার, ডেপুটি পুলিশ সুপার ডিআইবি শিমুল সরকার-সহ ওই মৃতার পরিবারের পক্ষের আইনজীবী বাবলু চক্রবর্তীর উপস্থিতিতে দেহটি তোলা হয়। দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের জন্য আর জি কর (R G Kar hospital) হাসপাতালে দেহ পাঠানো হল।

৬ মার্চ গাংনাপুর থানার কামারবেড়িয়ায় এক বধূ শ্বশুরবাড়িতেই গণধর্ষণের শিকার হন বলে অভিযোগ। গণধর্ষণের পর দুষ্কৃতীরা তার মুখে ঘাস মারার বিষ ঢেলে বেশ কিছুদিন চিকিৎসার পরে কল্যাণী JNM হাসপাতালে ১৪ মার্চ নির্যাতিতার মৃত্যু হয়। পরেরদিন প্রথমবার দেহের ময়নাতদন্ত হয়। এরপর বাড়ির পাশের কবরস্থানে মৃতদেহ কবর দিয়ে দেওয়া হয়।

পরে ওই মহিলার মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে কলকাতা হাইকোর্ট মৃতদেহ দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেয়। ময়নাতদন্তের জন্য দেহ আরজি করে পাঠানো হয়েছে। সেই রিপোর্টের অপেক্ষা মৃতার পরিবার।

Previous articleকেন্দ্রের জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে মিছিল তৃণমূল কংগ্রেসের