জনরোষ সত্ত্বেও শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতির চেয়ারে রনিল বিক্রমাসিংঘে

দেশের চরম সঙ্কটজনক পরিস্থিতির মাঝে বুধবার শ্রীলঙ্কার(Srilanka) প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংঘে(Ranil Wickeremesinghe)। গোতাবায়া রাজাপক্ষে(Gotabaya Rajapokshe) ইস্তফা দেওয়া পর অন্তর্বর্তীকালীন রাষ্ট্রপতি(Preciednt) হিসেবে দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন তিনি। এদিনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অবলিলায় জিতে গেলেন রনিল।

শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে অস্থিরতা কাটাতে নতুন করে নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সাংসদরা। বুধবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ২২৩ জন সাংসদ ভোটে অংশ নিয়েছিলেন। তার মধ্যে ১৩৪টি ভোট পেয়ে জিতেছেন রনিল। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী দুল্লাস আলাফেরুমা পেয়েছেন ৮২টি ভোট। এদিন নির্বাচনে জয়ের পর রনিল জানান, তীব্র সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। আগামী দিনে আরও বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। প্রসঙ্গত, এর আগে দু’বার প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন রনিল। কিন্তু এই প্রথমবার জয়ের স্বাদ পেয়েছেন তিনি।

যদিও শুরু থেকেই দেশের সঙ্কটের জন্য রনিলকে দায়ী করেছিল শ্রীলঙ্কার জনতা। প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য লাগাতার আন্দোলন করেছেন বাসিন্দারা। তাঁদের দাবি ছিল প্রেসিডেন্ট পদে বসুক আলাফেরুমা। বিরোধী দলগুলিও তাঁকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে চায়। তবে সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাননি তিনি। প্রসঙ্গত, রাজাপক্ষেদের প্রিয়পাত্র হিসাবে পরিচিত রনিল বিক্রমাসিংঘে প্রেসিডেন্ট পদে বসতে পারেন, আগেই এমন অনুমান করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। এবার সেটাই হলো শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে। এখন দেখার বিষয় প্রেসিডেন্ট পদে বসে দেশের গুরুতর সমস্যার সমাধান করতে পারেন কিনা বিক্রমাসিংঘে।


Previous articleবিশ্বের ধনীদের তালিকায় চতুর্থ আদানি, সম্পত্তি দান করে গরিব গেটস