উন্নয়নের পাশাপাশি রাজ্যে বিপুল কর্মসংস্থান, তালিকা তুলে ধরে বিজেপিকে তুলোধনা মমতার

একুশের বৃষ্টিভেজা মঞ্চ থেকে একদিকে তৃণমূল সরকারের আমলে রাজ্যে উন্নয়নের জোয়ার, অন্যদিকে রাজ্যের যুবসমাজের জন্য আসন্ন কর্মসংস্থানের তালিকা তুলে ধরলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একইসঙ্গে বেকারত্ব ইস্যুতে কেন্দ্রের রিপোর্টকে হাতিয়ার করেই বিজেপিকে তুলোধনা করলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। কেন্দ্রের রিপোর্ট তুলে ধরে তিনি জানালেন, গোটা দেশে যখন ৪৫ শতাংশ বেকারত্ব বেড়েছে ঠিক সেই সময় বাংলায় ৪০ শতাংশ বেকারত্ব কমেছে। পাশাপাশি গোটা দেশের মধ্যে কৃষকদের আয় সবচেয়ে বেশি বেড়েছে বাংলায়।

একুশের মঞ্চে বক্তব্য রাখতে উঠে শুরুতেই বিজেপিকে তোপ দাগেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘এই বৃষ্টি চব্বিশে বিজেপিকে ভাসিয়ে নিয়ে চলে যাবে।’ পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘ওদের মেরুদণ্ডের একদিকে সিবিআই, একদিকে ইডি। আমাদের মেরুদণ্ড সোজা, মাথা উঁচু করে চলি।’ এরপর তৃণমূল সরকারের আমলে রাজ্যে উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরে দলনেত্রী বলেন, “তৃণমূল সরকার থাকলে পেনশন, ভাতা, বিনামূল্যে রেশন পাবেন। একইসঙ্গে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার, শিল্পীদের পেনশন, স্বাস্থ্যসাথী, কৃষক বন্ধু, সবুজ সাথী কন্যাশ্রীর মত প্রকল্প পাবেন।” পাশাপাশি রাজ্যে উন্নয়নের জন্য কেন্দ্রের স্বীকৃতি তুলে ধরে তিনি জানান, কৃষকদের উপার্জনের দিক থেকে দেশের মধ্যে বাংলা প্রথম। পাশাপাশি গোটা দেশে যখন ৪৫ শতাংশ বেকারত্ব বেড়েছে ঠিক সেই সময় বাংলায় ৪০ শতাংশ বেকারত্ব কমেছে বাংলায়।

এর পাশাপাশি আগামী দিনে বাংলায় বিপুল কর্মসংস্থানের খতিয়ান তুলে ধরে তৃণমূল সুপ্রিম জানান, “রাজ্য জুড়ে একাধিক প্রকল্পের কাজ চলছে। তাজপুরে বন্দর তৈরি হচ্ছে। ১২ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করে প্রচুর ছেলে মেয়ে এখানে চাকরি পাবে। সিলিকন ভ্যালিতে ৫০ হাজার আইটি জানা ছেলেমেয়ের চাকরি হতে চলেছে।
ডানকুনি থেকে পানাগড়, বাকুড়া, পুরুলিয়া দীর্ঘ জঙ্গলমহলে ৭২ হাজার কোটি টাকা খরচ হচ্ছে, কয়েক লক্ষ ছেলে মেয়ের চাকরি হবে, ডানকুনি থেকে অমৃতসর পর্যন্ত ডেডিকেটেড ফেথ করিডর হচ্ছে, আসানসোলে সেল গ্যাস পাওয়া গিয়েছে, দেউচায় সবচেয়ে ভালো কয়লা পাওয়া গেছে। আগামি ১০০ বছর বাংলায় বিদ্যুতের অভাব হবে না, বিদ্যুতের দাম কমবে। আমরা বিদ্যুৎ বিক্রি করতে পারব। একইসঙ্গে এখানে এক লাখ ছেলেমেয়ের চাকরি হবে, ৫০০ টি ইন্ড্রাস্টিয়াল পার্ক হচ্ছে, বানতলায় আড়াই লক্ষ ছেলেমেয়ে চাকরি করছে এমএসএমই-তে দেড় কোটি ছেলেমেয়ে চাকরি করছে।” শুধু তাই নয় তিনি আরও বলেন, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে ১৭ হাজার পদ শূন্য রয়েছে। আদালতে মামলা চলছে, তাই ওটা আটকে আছে।

একইসঙ্গে কেন্দ্রের কর্মী ছাঁটাই নিয়ে মোদি সরকারকে তোপ দাগেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, কোল ইন্ডিয়া, প্রতিরক্ষা, বিমান পরিবহন সংস্থা থেকে বহু কর্মীকে ছাঁটাই। একের পর এক পাবলিক সেক্টর থেকে কর্মী ছাঁটাই হয়েছে। এখন নতুন বিকল্প অগ্নিপথ। আমি বলি ও পথে হেঁট না বাপু। আর্মির কোনও বিকল্প নেই। একইসঙ্গে তাঁর স্লোগান, ‘গ্যাসের দাম বাড়ানোর, দাঙ্গা করার, বাংলা ভাঙার সরকার আর নেই দরকার।’


Previous articleIFA: বাগানকে জোড়া চিঠি আইএফএ-র