দুর্নীতি মামলায় চাঞ্চল্যকর মোড়, CBI সিজার লিস্টে পার্থর মিডলম্যানের বাড়িতে দিলীপের দলিল ! 

পার্থ ঘনিষ্ঠ প্রসন্ন রায়ের বাড়ি থেকে কী কী উদ্ধার হয়েছে, সেই সিজার লিস্ট ইতিমধ্যে জমা দিয়েছে সিবিআই। তার আট নম্বর পয়েন্টে লেখা, সৌভিক মজুমদার এবং দিলীপকুমার ঘোষের মধ্যে ২০২২ সালের ২২ এপ্রিল হওয়া ডিড। দিলীপকুমার ঘোষ অর্থাৎ বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। 

পার্থ ঘনিষ্ঠ প্রসন্ন রায়ের (Prasanna Roy) বাড়ি থেকে কী কী উদ্ধার হয়েছে, সেই সিজার লিস্ট ইতিমধ্যে জমা দিয়েছে সিবিআই। তার আট নম্বর পয়েন্টে লেখা, সৌভিক মজুমদার (Souvik Majumder) এবং দিলীপকুমার ঘোষের মধ্যে ২০২২ সালের ২২ এপ্রিল হওয়া ডিড। দিলীপকুমার ঘোষ অর্থাৎ বিজেপির (BJP) সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)।

এসএসসি (SSC) ও শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় চাঞ্চল্যকর মোড়। নিয়োগ দুর্নীতির মামলায় প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠ ধৃত মিডলম্যানের বাড়িতে মিলেছে, বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষের কেনা জমির দলিল। সিবিআইয়ের সিজার লিস্টে এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পরই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে তোলপাড়।

ধৃত মিডলম্যানের সঙ্গে দিলীপ বাবুর কীসের সম্পর্ক? কেন পার্থর মিডলম্যানের বাড়িতে দিলীপের জমির দলিল। দলিলটি যে তাঁর, সেটা স্বীকার করে নিয়েছেন দিলীপ ঘোষও। ওই মিডলম্যান যে দিলীপের পূর্ব পরিচিত তাও স্বীকার করেছেন রাজ্য বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি।

প্রসঙ্গত, নিয়োগ দুর্নীতির মামলায় সিবিআইয়ের (CBI) হাতে গ্রেফতার হয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মিডলম্যান প্রসন্ন রায়। এখন তিনি জেলবন্দি। সিবিআই দাবি করেছে, মিডলম্যানদের মাধ্যমেই চাকরিপ্রার্থীদের থেকে টাকা তোলা হত। এবার ধৃত সেই মিডলম্যানের সঙ্গেই রাজ্য বিজেপির অন্যতম শীর্ষনেতার ঘনিষ্ঠতা সামনে আসায় রাজনৈতিক মহলে জোরচর্চা।

পার্থ ঘনিষ্ঠ প্রসন্ন রায়ের বাড়ি থেকে কী কী উদ্ধার হয়েছে, সেই সিজার লিস্ট ইতিমধ্যে জমা দিয়েছে সিবিআই। তার আট নম্বর পয়েন্টে লেখা, সৌভিক মজুমদার এবং দিলীপকুমার ঘোষের মধ্যে ২০২২ সালের ২২ এপ্রিল হওয়া ডিড। দিলীপকুমার ঘোষ অর্থাৎ বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

সিবিআই সূত্রে দাবি, এটি দক্ষিণ ২৪ পরগনার একটি জমি কেনাবেচার ডিড। জমিটি সৌভিক মজুমদারের থেকে কিনেছেন দিলীপ ঘোষ। কিন্তু, দিলীপ ঘোষের জমি কেনার নথি, নিয়োগ দুর্নীতিকাণ্ডে ধৃত মিডলম্যানের বাড়িতে কেন? বিভিন্ন মহলে উঠতে শুরু করেছে সেই প্রশ্ন। প্রসন্ন রায়ের সঙ্গে পরিচিতির কথা স্বীকার করে নিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি বলেন, “আমার ওই কমপ্লেক্সে ফ্ল্যাট ছিল। ইলেকট্রিক কানেকশনের জন্য দলিল দিয়েছিলাম। আগে পরিচয় ছিল। ও যে অন্য কোনও কাজে যুক্ত, জানতাম না।” কিন্তু দিলীপ ঘোষের এমন স্বীকারোক্তিতে এতো সহজে চিড়ে যে ভিজবে না তা কার্যত স্পষ্ট।

Previous articleTweeter: বন্ধ হল টুইটারের ব্লু টিক, বিভ্রান্তি তৈরির অভিযোগ গ্রাহকদের