যোগীরাজ্যে এডস আক্রান্ত প্রসূতিকে ছুঁলেন না ডাক্তার! হাসপাতালেই সন্তান হারালেন মা

মোদির ডিজিটাল ইন্ডিয়ায় বিজেপি শাসিত উত্তরপ্রদেশের এ কী ছবি! প্রসূতি এইচআইভি পজিটিভ। তাই চিকিৎসকরা তাঁকে ছুঁয়েও দেখেননি! শেষে হাসপাতালের প্রধানের হস্তক্ষেপে প্রসূতির অস্ত্রোপচার হয়। কিন্তু জন্মের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যু হয় সদ্যোজাতের।

আরও পড়ুন:যোগীরাজ্যে এবিসিডির ভিন্নরূপ! এ ফর অ্যাপেল বদলে গেল অর্জুনে,বল হল বলরাম

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের ফিরোজাবাদের একটি সরকারি হাসপাতালে।প্রসূতির বাবা জানান,  ‘‘আমরা ওকে প্রথমে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু ওই নার্সিংহোম বলে বিষয়টি জটিল হয়ে গিয়েছে। ২০ হাজার টাকা চাই। আমাদের কাছে অত টাকা ছিল না। তাই বাধ্য হয়ে মেয়েকে নিয়ে সরকারি মেডিক্যাল কলেজে আসি। ছ’ঘণ্টা ধরে আমার মেয়ে বিছানায় শুয়ে যন্ত্রণায় ছটফট করল কিন্তু কোনও ডাক্তার এলেন না। মেয়েকে কেউ ছুঁয়েও দেখেননি। বাধ্য হয়ে আমি হাসপাতালের সুপার ম্যাডামকে ডাকি। তাঁর হস্তক্ষেপের পর মেয়ের অস্ত্রপচার হয় রাত সাড়ে ন’টা নাগাদ। কিন্তু তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছিল।’’

প্রসূতির পরিবারের সঙ্গেই ছিলেন একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মকর্তা। সংস্থাটি এডস আক্রান্তদের নিয়েই কাজ করে। সংস্থার কর্মকর্তা বলেন, ‘‘আমি ওঁকে হাসপাতালে ভর্তি করি দুপুর তিনটে নাগাদ। কিন্তু প্রসূতি এডস আক্রান্ত শোনার পর কেউ তাঁকে ছুঁয়ে দেখেনি। মেয়েটি রাত ন’টা পর্যন্ত অসহ্য যন্ত্রণায় কষ্ট পায়। কিন্তু কারও দেখা মেলেনি।’’

মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটার পরও দায় স্বীকার করতে রাজি নয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালের সুপারের দাবি, ওই মহিলা যে এডস আক্রান্ত তা তাঁরা জানতেন না। একজন সাধারণ রোগীর মতোই সব করা হয়েছিল। গাফিলতির অভিযোগ ভিত্তিহীন।পাশপাশি তিনি এও অবশ্য বলেন, রোগীর পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা একটি তদন্ত কমিটি তৈরি করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছি। সেই রিপোর্ট হাতে পেলেই দোষীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজেপি শাসিত যোগীরাজ্যে এই মর্মান্তিক ঘটনায় সরব হয়েছে বিরোধীরা। রোগের কথা না ভেবে যথাযথ চিকিৎসা দেওয়া যাঁদের কাজ , সেই চিকিতসকরাই যদি রোগকে ভয় পেয়ে পালিয়ে যান, তাহলে রোগীর চিকিৎসা কে করবে বলে প্রশ্ন উঠেছে।

Previous articleবসার জায়গা পছন্দ নয়, হাস্যকর অজুহাত দেখিয়ে রাজ্যপালের শপথ এড়ালেন শুভেন্দু