মর্মা*ন্তিক! নদীতে ভেসে উঠল একই পরিবারের ৩ শিশু সহ ৭ সদস্যের দেহ

পুলিশ সূত্রে খবর, গত ১৮ থেকে ২১ জানুয়ারির মধ্যে পুণের দোন্ড এলাকার ভিমা নদী থেকে চারটি দেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। বাকি দেহগুলির খোঁজে তল্লাশি চলছিল। অবশেষে বুধবার সকালে বাকি তিন দেহের খোঁজ পাওয়া যায়।

নদীতে ভেসে উঠল একই পরিবারের ৭ সদস্যের দেহ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল পুণেতে (Pune)। পুণের ভিমা (Bhima River Pune) নদীর বিভিন্ন স্থান থেকে প্রথমে চার ও পরে তিনটি দেহ উদ্ধার হয়েছে। ইতিমধ্যে দেহগুলি ময়নাতদন্তের (Post Mortem) জন্য পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত (Investigation) শুরু করেছে পুলিশ। পরিবারের ৭ সদস্যের মধ্যে ৩ শিশু (Childs) রয়েছে বলে খবর।

পুলিশ সূত্রে খবর, গত ১৮ থেকে ২১ জানুয়ারির মধ্যে পুণের দোন্ড এলাকার ভিমা নদী থেকে চারটি দেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। বাকি দেহগুলির খোঁজে তল্লাশি চলছিল। অবশেষে বুধবার সকালে বাকি তিন দেহের খোঁজ পাওয়া যায়। এদিকে মৃতদের কল ডেটা খতিয়ে দেখে পুলিশ জানতে পারে, সাতজন একই পরিবারের সদস্য। তবে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান ছিল, প্রত্যেকেই আত্মহত্যা করেছেন। যদিও সবদিক খতিয়ে দেখে আরও কিছু তথ্য হাতে আসে পুলিশের। যার ভিত্তিতে প্রথমে অস্বাভাবিক মৃত্যুর অভিযোগ দায়ের করা হয়।

ঘটনায় ইতিমধ্যে পাঁচজনকে আটক করেছে পুণে রুরাল পুলিশ (Pune Rural Police)। তাঁদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির (IPC) ৩০২ ধারায় এফআইআর দায়ের হয়েছে। অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও কিছু তথ্য খুঁজে বের করার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। তবে পরিবারের একজন সদস্য এখনও জীবিত আছেন। স্থানীয় সূত্রে খবর, বাড়ির মহিলা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। লোকলজ্জার ভয়ে ওই পরিবার মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করতে চেয়েছিল। স্থানীয়দের দাবি, অপমানের হাত থেকে রক্ষা পেতেই হয়তো পরিবারের সদস্যরা আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। যদিও মৃত্যুর নেপথ্যে অন্য কোনও কারণ আছে কি না, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

 

 

Previous articleজি ২৪ ঘণ্টায় সাক্ষাৎকার: ফেসবুকে দর্শক সংখ্যার নিরিখে মিঠুনকে গোহারা হারালেন কুণাল