চাঁদের পর নজরে সূর্য! আদিত্য-L1 উৎক্ষেপণের আগে ফের তিরুপতি মন্দিরে ISRO-র বিজ্ঞানীরা

গত ২৩ অগাস্ট চন্দ্রযান-৩ চাঁদে সফলভাবে ল্যান্ডিংয়ের পর ইসরো প্রধানকে দেখা গিয়েছিল ভদ্রকালী মন্দিরে পুজো দিতে। এবার আদিত্য এল-১ মিশনের সাফল্য কামনাতেও ইসরোর বিজ্ঞানীরা পৌঁছে গেলেন অন্ধ্রপ্রদেশের তিরুমালা শ্রী ভেঙ্কটেশ্বর মন্দিরে।

চাঁদের (Moon) পর এবার ইসরোর (ISRO) টার্গেট সূর্য (Solar Mission)। চন্দ্রযান ৩-এর (Chandrayaan 3) সাফল্যের পর আশায় বুক বাঁধছে দেশবাসী। শনিবারও ফের পরীক্ষার সামনে পড়তে চলেছে ইসরো। শনিবার সকাল ১১টা ৫০ মিনিটে শ্রীহরিকোটার লঞ্চিং সেন্টার থেকে সূর্যের উদ্দেশে পাড়ি দেবে আদিত্য এল-১ (Aditya L1)। চন্দ্রযান-৩-র রোভার প্রজ্ঞান (Rover Pragyaan) বর্তমানে চাঁদের অন্দরের বিভিন্ন খবর সংগ্রহে ব্যস্ত। আর এমন আবহেই সূর্যের রহস্য উত্থানে পাঠানো হবে আদিত্য-L1 মহাকাশযানকে। তার আগে শুক্রবারই মন্দিরে পৌঁছলেন ইসরোর বিজ্ঞানীরা। চন্দ্রাভিযানের সাফল্যের পর এবার সূর্য মিশনের সাফল্য কামনায় তিরুপতি মন্দিরে (Tirupati Temple) পুজো দিলেন ইসরো চেয়ারম্যান এস সোমনাথ (S Somnath)। ইতিমধ্যে ইসরো উৎক্ষেপণের সমস্ত প্রস্তুতির কাজ সম্পন্ন করেছে। গত ২৩ অগাস্ট চন্দ্রযান-৩ চাঁদে সফলভাবে ল্যান্ডিংয়ের পর ইসরো প্রধানকে দেখা গিয়েছিল ভদ্রকালী মন্দিরে পুজো দিতে। এবার আদিত্য এল-১ মিশনের সাফল্য কামনাতেও ইসরোর বিজ্ঞানীরা পৌঁছে গেলেন অন্ধ্রপ্রদেশের তিরুমালা শ্রী ভেঙ্কটেশ্বর মন্দিরে।

শুক্রবার ইসরোর চেয়ারম্যান এস. সোমনাথ বলেন, ইসরোর সৌর মিশন ‘আদিত্য-L1’ উৎক্ষেপণের জন্য আমরা প্রস্তুত। রকেট ও স্যাটেলাইট একেবারে রেডি। উৎক্ষেপণের জন্য সব কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়ে গিয়েছে। এটি ভারতের প্রথম সূর্য অভিযান। ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন দেশের প্রথম সৌর মিশনের নাম দিয়েছে ‘Aditya-L1’। এর সাহায্যে সূর্য সম্পর্কে আরও তথ্য জানা যাবে। আদিত্য L1 সৌরযানটি সূর্য এবং পৃথিবীর মহাকর্ষীয় সিস্টেমের লং রেঞ্জ পয়েন্ট 1 (L1) এর চারপাশে একটি কক্ষপথে স্থাপন করা হবে। এই জায়গাটি পৃথিবী থেকে প্রায় ১৫ লক্ষ কিলোমিটার দূরে। ইসরো জানিয়েছে, চন্দ্রযান-৩ মিশনের মতো ISRO আদিত্য-L1 লঞ্চের সরাসরি সম্প্রচার করবে ইসরো। এই মিশনের লঞ্চিং প্রক্রিয়া সরাসরি ISRO-এর ইউটিউব চ্যানেলে দেখানো হবে। পাশাপাশি ডিডি ন্যাশনালেও দেখানো হবে সরাসরি সম্প্রচার।

ইসরো জানিয়েছে, প্রথমে এটিকে পৃথিবীর নিম্ন কক্ষপথে স্থাপন করা হবে। তারপর, কক্ষপথ আরও উপবৃত্তাকার করা হবে। শেষ পর্যন্ত মহাকাশযানটিকে পৃথিবীর মহাকর্ষীয় ক্ষেত্র থেকে লং রেঞ্জ পয়েন্ট 1-এর দিকে নিয়ে যাওয়া হবে। পরে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ ক্ষেত্র থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরে, আদিত্য-L1-এর ক্রুজ পর্যায় শুরু হবে। তারপরে এটি লং রেঞ্জ পয়েন্ট 1 (L1) এর চারপাশে একটি অন্য কক্ষপথে প্রবেশ করবে। ISRO-এর মতে, পৃথিবী থেকে লং রেঞ্জ পয়েন্ট 1-এ যাত্রা শেষ করতে কমপক্ষে চার মাস সময় লাগবে।

 

 

 

 

 

 

Previous articleপাকিস্তানে মহার্ঘ পেট্রোল ডিজেল, দাম ছাড়াল ৩০০- এর গণ্ডি!
Next articleকোথায় বসবে সিসিটিভি, লিখিতভাবে জানাতে হবে! যাদবপুরের ছাত্র সংগঠনের ‘আজব’ দাবি