লোবার কয়লা শিল্পের জটিলতা

ফের জটিলতা লোবার কয়লা শিল্পের। ডিভিসির প্যাকেজ পছন্দ হল না কৃষি জমি রক্ষা কমিটির। বহু টালবাহানার পর চলতি বছরে বীরভূমের দুবরাজপুরের লোবার খোলামুখ কয়লাখনির জট কাটতে শুরু করেছিল। কিন্তু ডিভিসির ঘোষিত প্যাকেজে ফের জটিলতা সৃষ্টি করল। সোমবার, শুরু জেলা প্রশাসন দফতরে বৈঠক হয়। ছিলেন জেলাশাসক মৌমিতা গদারা সহ অন্যান্য প্রশাসনিক আধিকারিক, কৃষিজমি রক্ষা কমিটির সদস্য এবং ডিভিসি-র প্রতিনিধিরা।

ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে, লোবার জমির মালিকদের জন্য একটি প্রস্তাবিত প্যাকেজ ঘোষণা করে ডিভিসি। সেখানে বলা হয় প্রতি একর জমি পিছু 14 লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে। তাছাড়া ডিভিসির পক্ষে এখন চাকরি দেওয়া সম্ভব নয়। সে কারণে যতদিন না চাকরি দেওয়া হচ্ছে ততদিন গ্রামবাসীদের 2 হাজার টাকা করে ভাতা দেওয়া হবে। এছাড়া স্কুল, হাসপাতাল সহ অন্যান্য সবরকম ব্যবস্থা রাখা হবে। কিন্তু জমির দাম এবং ভাতার কথা শুনে হতবাক কৃষিজমি রক্ষা কমিটির সদস্যরা। তাঁদের পাল্টা দাবি, প্রস্তাবিত প্যাকেজ গ্রামের মানুষদের কাছে গিয়ে বোঝানোর জন্য। যদিও বৈঠক শেষে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে কৃষি রক্ষা কমিটির সদস্য জয়দীপ মজুমদার ও ফেলারাম ঘোষ জানন, প্যাকেজ পছন্দ হয়নি তাঁদের। পাশাপাশি, ডিভিসির বিরুদ্ধে তাঁরা অভিযোগ করেন, আদৌ ডিভিসি কয়লা খনি করতে চায় কি না তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। অন্যদিকে, জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা বসু বলেন,”ডিভিসি একটি প্যাকেজ প্রস্তাব করেছে। সে প্যাকেজ এবং জমির দাম নিয়ে আলোচনা হয়েছে। গ্রাউন্ড লেভেলে কথা না বলে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। তাই গ্রামবাসীদের সঙ্গে গিয়ে কথা বলার জন্য বলা হয়েছে।” একই কথা বলেছে জমি রক্ষা কমিটির সদস্যরাও।