বাংলার বিধানসভা ভোটের আগে সিএবি পাশ করিয়ে আতঙ্কিত হিন্দুদের বার্তা দিতে মরিয়া বিজেপি

লক্ষ্য পশ্চিমবঙ্গ। প্রকাশ্যে ও দলের অন্দরে বারবারই বলে থাকেন নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরা। এমনকী সম্প্রতি বাংলার তিন উপনির্বাচনে লজ্জাজনক হারের দিনও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আসল লড়াই হবে বিধানসভা ভোটে। সেই ভোটেই হবে বাংলার পালাবদল। উপনির্বাচনে হারের কারণ পর্যালোচনায় তাই এনআরসি-আতঙ্কের কথা উঠে এলেও অমিত শাহ আত্মবিশ্বাসী, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশের পরই বদলাবে পরিস্থিতি। বাংলা, অসম, ত্রিপুরার হিন্দুদের এনআরসি জুজুর কথা বলে ভয় দেখানো যাবে না। কারণ নতুন বিল পাশ করে হিন্দুদের অনুপ্রবেশকারী হিসাবে চিহ্নিত হওয়ার আশঙ্কাই থাকবে না। উল্টে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তানের হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, পার্শি, শিখ, খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের অনুপ্রবেশকারীদের শরণার্থীর শংসাপত্র দিয়ে ভারতের নাগরিক হিসাবে গণ্য করা হবে। এজন্য 1955 সালের আইনের নিয়মকানুনও কিছুটা শিথিল করা হবে। সংসদে এবারের অধিবেশনে তাই সিএবি বিল পাশ করাতে মরিয়া বিজেপি।