পাট্টা বিতরণ নিয়ে বাম ডানে তরজা শিলিগুড়ি পুরসভায়

পাট্টা বিতরণ নিয়ে জোর বিতর্ক শিলিগুড়ি পুরসভায়। পুরনির্বাচন যত এগিয়ে আসছে ততই বাম-ডানের মধ্যে বিতন্ডা বেড়েই চলেছে। শুক্রবার, শিলিগুড়ি পুরসভায় সাংবাদিক বৈঠক ডেকে মেয়র অশোক ভট্টাচার্য জানান, নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই বিরোধী দল অর্থাৎ রাজ্যের শাসক দল নানারকম ভাবে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে চলেছেন একের পর এক। এখন শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ডে তারা পাট্টা দেওয়ার নাম করে একটি ফর্ম ফিলাপ করাচ্ছেন। অনেক জায়গায় তারা আবার টাকাও নিচ্ছেন বলে অভিযোগ পেয়েছি। কিন্তু এভাবে পাট্টা দেওয়া যায়না। তিনি আরও বলেন, “পাট্টা দেওয়ার জন্য যে কমিটি রয়েছে তার চেয়ারম্যান হল মেয়র অর্থাৎ আমি। তাহলে আমাকে না জানিয়ে এই কাজ কী করে হয়। তারা আবার রেলের জমিতে পাট্টা দেবে বলে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। যা একদমই ঠিক নয়। এভাবে মানুষকে বোকা বানানো যাবে না। আর জল কর কিংবা মিউটেশন ফি মকুব করার যে আশ্বাস তারা দিচ্ছে তা সম্পূর্ণ অলীক স্বপ্ন কারণ তারা কোনওদিন শিলিগুড়ি পুরসভায় আসতেও পারবে না আর এসব করতেও পারবে না”।

অশোক ভট্টাচার্যের এই কথার পাল্টা জবাব দিয়েছেন তৃণমূলের বিরোধী দলনেতা রঞ্জন সরকার। তাঁর বক্তব্য, উনি মানুষকে পরিষেবা দিতে চরম ব্যর্থ। আর পাট্টা কি করে দেবেন। আমরা ওয়ার্ডে যাচ্ছি যারা এখনও পাট্টা পাননি তারা যাতে পাট্টা পায় তাই ফর্ম ফিলাপ করাচ্ছি। টাকা নেওয়ার অভিযোগ ওটা সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা। দিশাহীন হয়ে মেয়র এসব ভুল বকছেন। আমরা মানুষের সঙ্গে আছি পাশে আছি তাদের দাবি নিয়ে লড়াই করে যাব। তিনি আরও বলেন, ‘‘আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই সবথেকে বেশি মানুষকে পাট্টা দিয়েছেন। তাই আমরা হিসেব নিচ্ছি কারা এখনও বাকি রয়েছে যাতে তাদেরও দেওয়া যেতে পারে। আর এটা ঠিক সারা রাজ্যে আমাদের পুরসভা রয়েছে কোথাও জল কর নেওয়া হয় না। আর মিউটেশন ফি আমরা মকুব করার জন্য আন্দোলন করেছি। তাই শিলিগুড়িতে ক্ষমতায় এলেই আমরা এসব মকুব করে দেব।’’