করোনা হামলার পূর্বাভাস দেওয়া বিজ্ঞানী বলছেন, আমেরিকাকে জ্বালিয়ে প্রকোপ কমবে

বিশ্বকে আশার কথা শুনিয়ে বিজ্ঞানীরা বলছেন এবার ক্রমশ দুর্বল হবে করোনাভাইরাস। ভারতীয় বংশোদ্ভূত টেক্সাস ইউনিভার্সিটির চিকিৎসা বিজ্ঞানের গবেষক বিনীত মেনাচারি আমেরিকান সোসাইটি ফর মাইক্রোবায়োলজির একটি অনুষ্ঠানে স্পষ্ট ভাষায় বললেন, যতটা ভয় পাওয়া গিয়েছিল এখন আর ততটা ভয় নেই। ভাইরাস নিজের চরিত্র বদল করে মারাত্মক হচ্ছে না, যেটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। অর্থাৎ দুর্বল হচ্ছে ভাইরাস।

আর আগাম সতর্ক করে সাড়া ফেলে দেওয়া ২০১৩ সালের রসায়নে নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী মিশেল লেভিট ঠিক একই কথা শুনিয়েছেন। তাঁর কথা মানুষ মন দিয়ে এবং গুরুত্ব সহকারে শুনছেন। তার কারণ এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেই তিনি প্রথম সতর্ক করে বলেছিলেন করোনাভাইরাসে চিনে কমপক্ষে ৮০ হাজার মানুষ আক্রান্ত হবেন আর মারা যাবেন ৩২৫০জন মানুষ। বাস্তবে দেখা গিয়েছে চিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮০,২৯৮জন আর মৃতের সংখ্যা ৩২৮১!

আশ্চর্যজনকভাবে পূর্বাভাস মিলিয়ে বিজ্ঞানী বলছেন করোনার প্রকোপ এবার দ্রুত গোটা বিশ্ব থেকে সরে যাবে। চিন, ইতালির পর আমেরিকাতেও মৃত্যু-মিছিল হতে পারে। কিন্তু তার পরেই ধীরে ধীরে কমবে সংক্রমণ। ইউরোপের দেশগুলিতে মৃত্যু বেশি। ইতালিতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু, ৬৮২০। কিন্তু স্পেনের মৃত্যুসংখ্যা চিনকে ছাড়িয়ে গিয়েছে এই মুহূর্তে। তাদের মৃতের সংখ্যা ৩৪৩৪, আক্রান্ত ৪৭,৬১০। ইতালিতে সবচেয়ে বেশি, ৬,৮২০জন। প্রশাসন ব্যর্থ হচ্ছে রোগীদের পরিষেবা দিতে। তার কারণ হাসপাতাল তৈরি করা যাচ্ছে না। খোলা আকাশের নিচে মানুষকে রাখতে হচ্ছে। অনেকে রোগ লুকিয়ে বাড়িতে থাকছেন। সেই কারণে কঠোর শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে। কোয়ারেন্টাইন মানছেন না অনেকেই। স্পেনের পরিস্থিতি শঙ্কাজনক। আগামী এক সপ্তাহের মৃত্যু লাফিয়ে বাড়বে বলে চিকিৎসকদের ধারণা। নতুন করে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে জার্মানিতে। যে কোনও সময় সেখানে করোনার হামলা শুরু হতে পারে। ফলে ইউরোপ জুড়ে এখন আশঙ্কার বাতাবরণ তবু বিজ্ঞানী বলছেন দ্রুত কেটে যাবে এই সময়।