পুলওয়ামায় গুলির লড়াই, বাহিনীর গুলিতে খতম শীর্ষ হিজবুল কমান্ডার নাইকু

এনকাউন্টারে নিহত হল শীর্ষস্থানীয় জঙ্গি ও হিজবুল কমান্ডার রিয়াজ নাইকু। করোনা সংকটের মধ্যেও পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি কার্যকলাপে ছেদ পড়েনি জম্মু-কাশ্মীর উপত্যকায়। তৎপর রয়েছে ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীও। বুধবার সকাল থেকে ঘিরে রেখে শেষ পর্যন্ত হিজবুল মুজাহিদিনের শীর্ষ জঙ্গি রিয়াজ নাইকুকে নিকেশ করল যৌথ বাহিনী। পুলওয়ামার বেইগপুরায় মঙ্গলবার রাত থেকে ঘিরে রেখে চলছিল গুলির লড়াই। শেষ পর্যন্ত বুধবার দুপুরের দিকে বিস্ফোরণে একটি বাড়ি উড়িয়ে দিয়ে রিয়াজ নাইকুকে মারতে সক্ষম হয় ভারতীয় সেনা, সিআরপি এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের যৌথ বাহিনী।

জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে জঙ্গি গতিবিধির খবর পেয়ে বেইগপুরা এলাকা ঘিরে ফেলে যৌথ বাহিনী। সকালেই শুরু হয় অভিযানের প্রস্তুতি। এরপর সকাল ন’টা নাগাদ জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ জানায়, ওই এলাকায় ঘিরে ফেলা হয়েছে হিজবুল মুজাহিদিনের এক শীর্ষ জঙ্গিকে। জম্মু-কাশ্মীরের ১০টি জেলাতেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট সংযোগ। পরে পুলিশ ও সেনার বিভিন্ন সূত্রে খবর মেলে, ওই জঙ্গি আসলে হিজবুল মুজাহিদিনের জম্মু-কাশ্মীরের দায়িত্বপ্রাপ্ত জঙ্গি কমান্ডার রিয়াজ নাইকু। ধীরে ধীরে ঘিরে ফেলা এলাকা ছোট করে আনতে থাকে যৌথ বাহিনী। তখন একটি বাড়িতে আশ্রয় নেয় রিয়াজ নাইকু। তার পরেই বিস্ফোরণে ওই বাড়িটি উড়িয়ে দেয় বাহিনী। পরে তল্লাশি চালিয়ে দুই জঙ্গির দেহ উদ্ধার হয়। তার মধ্যে একজন মোস্ট ওয়ান্টেড রিয়াজ নাইকু, যার মাথার দাম ধরা ছিল ১২ লক্ষ টাকা।