অমিতাভের সঙ্গে রেখার অন্তরঙ্গতা দেখে কী করেছিলেন জয়া? কী ঘটেছিল সেদিন…

কেটে গিয়েছে ৪৮ বছর। বুধবার ৩জুন ছিল অমিতাভ-জয়ার বিবাহবার্ষিকী। জীবনের নানান সমালোচনাকে পিছনে ফেলে তাঁরা একসঙ্গে পার করে দিলেন অনেকগুলি বছর। তাঁদের বিয়ের পিছনেও রয়েছে অনেক অজানা গল্প। অমিতাভ-রেখা সম্পর্কের কথা সকলেরই জানা। বলিউডের অমর প্রেমের জুটি বলতে গেলেই প্রথমেই উঠে আসে রেখা এবং অমিতাভের নাম। রিল থেকে রিয়েল বারেবারে পেজ থ্রি-র শীর্ষে উঠে এসেছেন এই জুটি।  সত্তরের দশক থেকে আজও তাদের রোম্যান্টিক জুঁটি দশর্কমনে  হিট। একটা সময় এমন হয়েছিল, রেখার সঙ্গে অমিতাভের অন্তরঙ্গতা দেখে কেঁদে ফেলেছিলেন জয়া! ঠিক কী ঘটেছিল সেদিন?

বলিউডের শাহেনশাহ অমিতাভ বচ্চন, যার অভিনয় আজও মুগ্ধ গোটা দর্শককুল। একের পর এক সিনেমায় অভিনয় করে তা ভক্তেদের মণিকোঠায় স্মরণীয় করে রেখেছেন বিগ-বি।

দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে রাজ করছেন অমিতাভ। একের  পর এক সুপারহিট সিনেমা  যেমন সুহাগ, মুকাদ্দর কা সিকান্দর, মি.নটবরলাল আরও অনেক ছবিতে রোমান্টিক জুঁটি হিসেবে বি-টাউনে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন রেখা-অমিতাভ।

তারপর থেকেই ঘনিষ্ঠতা বাড়তে থাকে দুজনের। সালটা ১৯৭৬। ‘দো আনজানে’ ছবির শুটিং চলাকালীন তাঁদের প্রেমের গুঞ্জন শুরু হয়। তারপর সম্পর্ক নিয়ে কথা উঠলেই কখনও স্বীকার করেননি অমিতাভ। এমনকী ১৯৮৪ সালে ফিল্মফেয়ারে তাদের ডেটিং নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। সেই সময়েও অমিতাভ রেখার সঙ্গে সম্পর্কে অস্বীকার করেছিল।

রেখার কারণেই অমিতাভ-জয়ার মধ্যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল। একবার একটি সাক্ষাৎকারে রেখা জানিয়েছিলেন,  আমি তাঁকে ঘর ভাঙতে বলছি না। তবে আমি বলতে পারি তিনি যা আমাকে দিয়েছেন তা পেয়েই আমি খুশি।

রেখা জানিয়েছিলেন,”মুকাদ্দর কা সিকান্দর ছবিতে স্ক্রিনিংয়ের সময় আমি প্রোজেকশন রুমে ছিলাম। জয়া ও তাঁর সন্তানরা প্রথম সারিতে বসেছিছিলেন। অমিতাভ ছিলেন দ্বিতীয় সারিতে। ছবিতে যখন অমিতাভের সঙ্গে আমার প্রেমের দৃশ্য দেখানো হয়েছিল তা দেখেই কেঁদে ফেলেছিলেন জয়া।”