ফের ভাটপাড়ায় বোমাবাজি! অভিযোগের তির অর্জুন অনুগামীদের দিকে

অর্জুন সিংয়ের দলবদল ও ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকে বোমাবাজি ও রাজনৈতিক সংঘর্ষের জন্য বারেবারে সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে উত্তর ২৪ পরগণার ভাটপাড়া এলাকা। ফের একবার বোমাবাজির ঘটনায় নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠলো ভাটপাড়া পৌরসভা এলাকা।

এবার বোমা মারার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয় লক্ষ্য করে। অভিযোগের তির বিজেপির দিকে। অভিযোগ, ভাটপাড়া পৌরসভার ১০ ওয়ার্ডে বোমা এসে পড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ের চিলে কোঠার দেওয়ালে। স্থানীয়দের বয়ান অনুসারে, একটি বাইকে করে ৩ জন দুষ্কৃতী এসে বোমা ছোড়ে ভাটপাড়া পৌরসভার সুন্দিয়া পাড়া এলাকার তৃণমূল কার্যালয়ে।

যে সময় এই বোমা মারার ঘটনা ঘটে তখন বেশ কয়েকজন দলীয় কর্মী ওই কার্যালয় বসে তাদের দলীয় কাজকর্ম নিয়ে আলোচনা করছিলেন। হঠাৎই প্রচন্ড জোড়ে শব্দ শুনতে পান তারা। সঙ্গে সঙ্গে দলীয় কার্যালয় থেকে বেরিয়ে এসে তৃণমূল কর্মীরা দেখতে পান মুখ ঢাকা অবস্থায় তিন দুষ্কৃতী দ্রুত বাইক চালিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। বোমা ফাটার শব্দে রাস্তায় বেরিয়ে আসেন অন্যান্য প্রতিবেশীরাও। খবর দেওয়া হয় জগদ্দল থানায়। পুলিশ এসে এই ঘটনার তদন্ত শুরু করে।

ঘটনা সম্পর্কে বলতে গিয়ে তৃণমূল নেতা জিতেন্দ্র সাউ জানান, “অর্জুনের গুন্ডা বাহিনী এই ঘটনা ঘটিয়েছে। ওদের কোনও কাজ নেই, জনসেবা করে না, মাঝে মাঝেই রাতের বেলায় অর্জুন সিংয়ের আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বাইক নিয়ে এসে তৃণমূলের পার্টি অফিসগুলোতে বোমা মেরে পালায়। এলাকায় সন্ত্রাস সৃষ্টি করতেই ওরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে আর এখন ওই গুন্ডাদের কেউ ভয় পায় না।”

তাঁদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করা হলেও বিজেপির পক্ষ থেকে গোটা ঘটনা অস্বীকার করা হয়েছে। সাংসদ অর্জুন সিংয়ের দাবি, “তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলে এই ঘটনা ঘটেছে। কাটমানি খাওয়া নিয়ে ওদের দলের অন্দরে দ্বন্দ শুরু হয়েছে। এই বোমা মারার ঘটনার সঙ্গে বিজেপির কোনও ভাবেই জড়িত নয়।”

পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করলেও এখনও পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি। এই বোমাবাজির ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভাটপাড়া এলাকায় নতুন করে রাজনৈতিক চাপানউতর শুরু হয়েছে।