বিধানসভার অধিবেশনের আগে করোনা টেস্ট, জানালেন অধ্যক্ষ বিমান

বিধানসভায় অধিবেশন শুরুর আগে শুধু মন্ত্রী, বিধায়ক বা অধ্যক্ষ নন, যাঁরা যাঁরা উপস্থিত থাকার অনুমতি পাবেন সবাইকে করোনা পরীক্ষা করাতে হবে। বৃহস্পতিবার, সাংবাদিক বৈঠকে এ কথা জানান অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। এ মাসের কোন দিন পরীক্ষা করা হবে সে তারিখ ঘোষণা করে দেন তিনি।
ভাইরাস সংক্রমণ শুরু হওয়ায় ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয় পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার অধিবেশন। অবশেষে সেপ্টেম্বর মাসে ফের অধিবেশন চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
প্রাথমিকভাবে সপ্তাহে দুদিন স্বল্পকালীন অধিবেশন বসবে। ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর অধিবেশন বসবে।
অধিবেশনের আগে প্রত্যেকের করোনা টেস্ট হবে।
৮ ও ৯ সেপ্টেম্বর এই টেস্টের দিন স্থির করা হয়েছে। ৮ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল ৫টা ও ৯ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত টেস্ট হবে।
আধ ঘণ্টার মধ্যে টেস্টের রেজাল্ট জানিয়ে দেওয়া হবে।
যাঁরা নেগেটিভ হবেন, তাঁরাই শুধুমাত্র বিধানসভার মধ্যে ঢোকার অনুমতি পাবেন।
আর যাঁদের রেজাল্ট নেগেটিভ আসবে না, তাঁদের সেখানে উপস্থিত স্বাস্থ্য আধিকারিকদের নির্দেশ অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে হবে বলেই জানিয়েছেন তিনি।
অধিবেশনকে কেন্দ্র করে একগুচ্ছ বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।
অধিবেশনে ঢোকার আগে প্রত্যেক সদস্য, কর্মী, নিরাপত্তারক্ষী থেকে শুরু করে সংবাদমাধ্যমের আধিকারিকদের সবাইকে করোনা টেস্ট করাতে হবে।
অধিবেশনের সময় বিধায়কদের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে বয়স্ক বিধায়কদের বিধানসভার নীচের তলায় ও অল্প বয়স্ক বিধায়কদের উপরের তলায় বসতে দেওয়া হবে।
সংবাদমাধ্যমের সবাইকে এই সময় অধিবেশনে থাকার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। শুধুমাত্র কয়েকজনকেই সেই অনুমতি দেওয়া হবে।
এই সময় বাইরের কোনও অতিথি অধিবেশনে উপস্থিত থাকতে পারবেন না।
গাড়ি ঢুকতে দেওয়া হবে কিনা তা নিয়ে সিদ্ধান্ত এখনও নেওয়া হয়নি বলেই জানিয়েছেন অধ্যক্ষ। কারণ, বিধানসভার অন্দরে জায়গা কম থাকায় গাড়িগুলিকে অন্য জায়গায় দাঁড়ানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। কোনও ভাবেই সংক্রমণ ছড়াতে না পারে তার জন্য সব রকমের বন্দোবস্ত রেখেছেন তাঁরা।
বিধানসভা চত্বর স্যানিটাইজ করার কাজ চলছে।