ফেব্রুয়ারিতে দেশে করোনা-হানাদারি বন্ধ হবে, জমায়েতে বাড়বে সংক্রমণ, কমিটির রিপোর্ট

একইসঙ্গে আনন্দ এবং আতঙ্কের বার্তা৷

আশার কথা শুনিয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকার নিযুক্ত কমিটি৷ জানিয়েছে, ভারত পেরিয়ে এসেছে করোনা-র সর্বোচ্চ শিখর। আগামী ফেব্রুয়ারিতে দেশে করোনার হানাদারি বন্ধ হবে৷

একইসঙ্গে আতঙ্কের বার্তাও আছেন কমিটি বলেছে, সব ধরনের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকতেই হবে৷ এই সময়ে বড় ধরনের যে কোনও জন-জমায়েত সংক্রমণ এক লাফে অনেকটা বাড়িয়ে দিতে পারে।

সমস্ত বিধি মেনে চললে, তবেই আগামী বছরের ফেব্রুয়ারির শেষে অতিমারিকে নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে। সে সময় সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা থাকবে খুব সামান্য।

এতদিন কোনও আন্দাজ পাওয়া যাচ্ছিলো না, কবে নাগাদ দেশ ছেড়ে বিদায় নেবে করোনা৷ কমিটির রিপোর্ট এবার একটা অন্তত সীমানার হদিশ দিয়েছে৷

রবিবারও ভারতে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৬২ হাজার মানুষ। মৃত্যু সহস্রাধিক৷ আর তার মধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকার নিযুক্ত কমিটির ঘোষণার পর মারন- ভাইরাসের সঙ্গে যুদ্ধে জয়ী হওয়ার কথা ভাবতে শুরু করেছে গোটা দেশ৷
তবে কমিটি গুরুত্ব দিয়েই জানিয়েছে, মহামারি সংক্রান্ত সাবধানতা বজায় রেখেই এখনও চলতে হবে গোটা দেশকে৷

দেশের বেশ কয়েকটি IIT এবং ICMR বা ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ-এর এই কমিটিকে নিয়োগ করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। এই কমিটি বলেছে, ২০২১-এর ফেব্রুয়ারিতে দেশ থেকে বিদায় নিতে পারে করোনা-সংক্রমণ৷ দেশে করোনা সংক্রমণের প্রকৃতি এবং প্রতিকারের উপায় খুঁজতেই এই কমিটি নিযুক্ত করেছিল কেন্দ্র। কমিটিকে বলা হয়েছিলো, ‘ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল সুপারমডেল’ নামে একটি গাণিতিক মডেল তৈরি করতে হবে, যা দেশে করোনা অতিমারির প্রভাব ও প্রতিকার সম্পর্কে তথ্য দিতে পারবে৷ ওই গাণিতিক মডেল বিশ্লেষণের পরই কমিটি জানিয়েছে, দেশ কোভিড সংক্রমণের চূড়া পার করে এসেছে৷
এই মুহুর্তে দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের মোট সংখ্যা প্রায় ৭৫ লক্ষ। সরকার নিযুক্ত কমিটি বলেছে, ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা হতে পারে ১ কোটি ৫ লক্ষের মতো। একই সঙ্গে কমিটির সাবধানবাণী, বড় জমায়েত সংক্রমণ এক লাফে অনেকটা বাড়িয়ে দিতে পারে। সতর্ক না থাকলে, হঠকারী সিদ্ধান্ত নিলে বহুগুন বাড়বে বিপদ৷ সরকার নিযুক্ত এই কমিটি মনে করছে, দেশজুড়ে লকডাউনে লাভ হয়েছে । এখন দেশে মোট মৃতের সংখ্যা ১,১৪, ৩১ জন। কমিটি বলছে, লকডাউন না হলে দেশে মৃতের সংখ্যা এতদিনে ২৫ লক্ষ ছাড়িয়ে যেতে পারত।