দৃষ্টিশক্তির সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে ‘চোখের আলো’র সূচনা মুখ্যমন্ত্রীর

২০২৫-র মধ্যে বাংলার সব মানুষ চোখের সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন এই লক্ষ্যে নিয়ে সোমবার নবান্নে ‘‌চোখের আলো’‌–র সূচনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। এই প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য, চোখের চিকিৎসা ও অন্ধত্ব প্রতিরোধ করা।

মুখ্যমন্ত্রী জানান, এই প্রকল্পের আওতায় ৫ বছর বাংলা জুড়ে বিনামূল্যে ২০ লক্ষ মানুষের ছানি অপারেশন করা হবে। বিনামূল্যে ৮ লক্ষ ২৫ হাজার চশমা দেওয়া হবে। বিনামূল্যে চশমা দেওয়া হবে ৪ লক্ষ ছাত্রছাত্রীকে। পাশাপাশি, সমস্ত সরকারি স্কুলের (School) ছাত্রছাত্রীদেরও বিনামূল্যে চোখের পরীক্ষা হবে। এমনকী যে সব শিশুরা অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে যায় তাদের সকলের চোখ পরীক্ষা করা হবে বলে জানান মমতা।

৩০০ জনের বেশি চোখের সার্জেন ও প্রায় ৪০০ জন অপটোমেট্রিস্ট এই কাজে যুক্ত থাকবেন।
মঙ্গলবার থেকে প্রথম পর্যায়ে ১২০০টি গ্রাম পঞ্চায়েত ও শহরের ১২০টি প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে (Helth Centre) এই প্রকল্পটি চালু হবে। পরে সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত ও শহরকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হবে। মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‌২০২৫–এর মধ্যে সকলের চোখের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়াই সরকারের লক্ষ্য। এই প্রকল্পের নামকরণ করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। লোগোটিও (Logo) তিনি করেছেন।

এদিনই উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে একটি ট্রমা কেয়ার ইউনিটের সূচনা করা হয়েছে। তৈরি করতে খরচ হয়েছে ১০ কোটি টাকা। এতে উপকৃত হবেন সারা উত্তরবঙ্গের মানুষ। মুখ্যমন্ত্রী জানান, “এখন ঘরের পাশেই বিশ্বমানের চিকিৎসা সুবিধা পাবেন উত্তরবঙ্গের মানুষ। আর কলকাতায় আসতে হবে না”।

আরও পড়ুন- এতটুকুও বিরাম নেই, শিলিগুড়ি পৌঁছে ম্যারাথন বৈঠক অভিষেকের

Advt