দ্রুত সলতে পাকাচ্ছে নির্বাচন কমিশন, আগেই আসছেন ভোট-কর্তারা, আরও আধাসেনাও

নির্বাচনের দিন ঘোষণার সলতে দ্রুত পাকাচ্ছে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন (Election Com mission Of India) ৷ জানা গিয়েছে, শুক্রবারের বদলে, একদিন আগে বৃহস্পতিবারই ফের রাজ্যে আসছেন উপ-নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন (Sudeep Jain)। ওদিকে, কমিশন সূত্রে খবর, আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মোট ১২৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী (Central Force) আসছে রাজ্যে৷ গত শনিবার রাজ্যে এসেছে মাত্র ১২ কোম্পানি৷

বাংলার ভোট অবাধ করতে খুবই সিরিয়াস নির্বাচন কমিশন৷ কমিশনের এক সূত্র জানাচ্ছে, পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে শুক্রবারের বদলে বৃহস্পতিবারই রাজ্যে আসছেন উপ-নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। বৈঠক করবেন সমস্ত জেলার জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারদের সঙ্গে। গত জানুয়ারিতে দু’দফায় রাজ্যে এসেছিলেন সুদীপ জৈন। কমিশন সূত্রে খবর, সেবার প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে ওই বৈঠকে, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন তিনি। কারও কর্তব্যে গাফিলতি থাকলে, সাসপেন্ড করার হুঁশিয়ারিও দেন।

ওদিকে জানা গিয়েছে, আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রাজ্যে পা রাখছে মোট ১২৫ কোম্পানি আধা সেনা বা কেন্দ্রীয় বাহিনী৷ মোটামুটি এক কোম্পানিতে থাকেন ১২৫ থেকে ১৩৫ জন জওয়ান৷ গত শনিবার রাজ্যে এসেছে ১২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। শুরু করেছে রুটমার্চ। ২৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মোট ১২৫ কোম্পানি বাহিনী আসবে রাজ্যে। রাজ্যে এসে এই বাহিনীকে কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে, সে বিষয়ে উপ-নির্বাচন কমিশনার রাজ্য প্রশাসনকে নির্দেশ দেবেন বৃহস্পতিবারই৷

এদিকে,জেলাভিত্তিক নির্বাচনের প্রস্তুতির রিপোর্ট দ্রুত দিল্লিতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন৷ কমিশন সূত্রে খবর, রবিবারই জেলা নির্বাচন অফিসারদের কাছে ই-মেল পাঠানো হয়েছে৷ জেলাভিত্তিক নির্বাচনের প্রস্তুতি আগামী সোমবারের মধ্যে বিস্তারিত ভাবে দিল্লিতে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।