আব্বাসকে পাত্তা না দিয়ে সংখ্যালঘু অধ্যুষিত দেগঙ্গায় দলীয় প্রতীকে প্রার্থী ফরওয়ার্ড ব্লকের

জোটের (Alliance) জট অব্যাহত। কংগ্রেসের (Congress) সঙ্গে আব্বাস সিদ্দিকির (Abbas Siddiqi) ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের (ISF) শুরু থেকেই আদায়-কাঁচকলায় সম্পর্ক। তাই সংযুক্ত মোর্চার প্লাটফর্ম থেকেই আব্বাসের কোটার আসনে কংগ্রেস প্রার্থী দিয়েছে। একইভাবে কংগ্রেসের কোটার কেন্দ্রে প্রার্থী দিয়েছে আব্বাস।

কিন্তু বামফ্রন্টের (Left Front) শরিকের সঙ্গেও সমঝোতা হল না ফুরফুরা শরিফের পীরজাদার। এবার উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গাতেও (Deganga) জোটে জট! আইএসএস-কে আসনটি ছাড়া হয়েছিল মহাজোটের স্বার্থে। কিন্তু আজ, মঙ্গলবার দেগঙ্গা বিধানসভা কেন্দ্রে প্রার্থী ঘোষণা করে দিল বামফ্রন্টের শরিক ফরওয়ার্ড ব্লক (Forward Bloc)। কোনও গোঁজ বা নির্দল নয়, একেবারে দলীয় প্রতীকে।

দেগঙ্গা আসনে (Deganga) আইএসএফের (ISF) প্রার্থী করিম আলি। কিন্তু, এই আসনটি পীরজাদার দলকে ছাড়তে নারাজ ফরওয়ার্ড ব্লক (Forward Bloc)। জেলার নেতারা সাংবাদিক বৈঠক করে হাসানুজ্জামান চৌধুরীকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছে। আগেই আসনটি নিয়ে আপত্তি করেছিল ফব। ফরওয়ার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক নরেন চট্টোপাধ্যায় বলেছিলেন, ”দেগঙ্গা প্রথাগত বামেদের আসন। মুসলিম লিগের হাত থেকে ছিনিয়ে এনেছিলাম।” এ দিন আলাদা প্রার্থী দেওয়া নিয়ে নরেনের মন্তব্য, আসনটি নিয়ে আলোচনা হয়নি। সে কারণে প্রার্থী দিয়েছি।

শুধু দেগঙ্গাতেই নয়, নওদায় কংগ্রেসের প্রার্থী পছন্দ নয় বলে আলাদা করে প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণা করেছে স্থানীয় সিপিএম নেতৃত্ব (CPIM)। পুরুলিয়ার কাশীপুর ও জয়পুরেও একই ছবি। কাশীপুরে দাঁড়িয়েছেন সিপিএমের মল্লিকা মাহাতো। সেখানে সুভাষ মাহাতোকে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস। জয়পুরে ফরওয়ার্ড ব্লকের প্রার্থী থাকলেও আলাদা করে কংগ্রেস প্রার্থী দিয়েছে। ফলে রাজনৈতিক মহলের দাবি, একুশের নির্বাচনে আদপে কোনও জোট হলো না, বলা ভাল বেশকিছু কেন্দ্রে আসন সমঝোতা হলো। এটাকে আর যাইহোক, “মহাজোট” বা “সংযুক্ত মোর্চা” বলা চলে না!

আরও পড়ুন- নন্দীগ্রামে পা রাখার আগে ক্ষমা চান মিঠুন: কুণাল

Advt