মইনুদ্দিনের টিকিট না পাওয়ার পেছনে অনুব্রতর হাত, বিস্ফোরক অভিযোগ ফিরহাদের

প্রথম দফা নির্বাচনের হাতে বাকি আর মাত্র ৩ দিন তার আগেই সম্মুখ সমরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিক। বীরভূমের নলহাটি কেন্দ্রের প্রার্থীকে কেন্দ্র করে বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের(Anubrata Mondal) বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ আনলেন ফিরহাদ হাকিম(Firhad Hakim)। সম্প্রতি এক ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে যেখানে ফিরহাদ হাকিমকে বলতে শোনা যাচ্ছে নলহাটি(Nalhati) কেন্দ্রে মইনু্দ্দিনকে(Moinuddin) প্রার্থী না করার পিছনে হাত রয়েছে অনুব্রতর। এবং প্রার্থী পরিবর্তনের জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের(Mamata Banerjee) উপর রীতিমতো চাপ সৃষ্টি করেছিলেন অনুব্রত। স্বাভাবিকভাবে ফিরহাদ হাকিমের এহেন গুরুতর অভিযোগের পর অস্বস্তিতে পড়েছে শাসকদল তৃণমূল।

সম্প্রতি মইনুদ্দিন নিজের ফেসবুক পেজে ফিরহাদের একটি বক্তব্যের ভিডিও শেয়ার করেছেন, যেখানে প্রকাশ্য জনসভায় অনুব্রতের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন ফিরহাদ হাকিম। তাকে বলতে শোনা গিয়েছে, নলহাটি কেন্দ্রে মইনুদ্দিনকে প্রার্থী না করে অনুব্রতর পছন্দের লোককে প্রার্থী করা হয়েছে। এবং নিজের পছন্দের ব্যক্তিকে প্রার্থী করতে অনুব্রত বিরুদ্ধে নাকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ব্ল্যাকমেল করার অভিযোগও তুলেছেন ফিরহাদ। ভিডিওটি ভাইরাল হতে শাসকদলের অস্বস্তি যে বেড়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন ফিরহাদ হাকিম। তার দাবি, প্রার্থী নিয়ে কথা বললেও ব্ল্যাকমেলের কোনো কথা তিনি বলেননি।

আরও পড়ুন:ইডি-সিবিআইয়ের অপব্যবহার করছে বিজেপি, UP পুলিশ দিয়ে ভোট নয়! কমিশনে নালিশ তৃণমূলের

এ প্রসঙ্গে বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল অবশ্য স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বলেছিলেন মইনুদ্দিনকে প্রার্থী না করার জন্য। এই প্রেক্ষিতে যুক্তি দিয়ে তিনি বলেন, বিগত পাঁচ বছরে বিধায়কের সঙ্গে এলাকাবাসীর কোন যোগাযোগ নেই, ফলে মইনুদ্দিন যদি আবার প্রার্থী হয় তাহলে তাকে জেতানো সম্ভব হবে না বলে দলনেত্রীকে জানান তিনি। প্রসঙ্গত, শাসকদলের প্রার্থী নিয়ে রাজ্যে একাধিক জায়গায় বিক্ষোভ অসন্তোষ চোখে পড়েছিল। যদিও বিজেপির তুলনায় তা যৎসামান্যই। এদিকে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর কিছুটা হলেও অসন্তোষ শুরু হয়েছে বীরভূমে তৃণমূলের অন্দরে। উল্লেখ্য, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ফিরহাদ হাকিমের ওই ভিডিওর কোনও রকম সত্যতা যাচাই করেনি ‘এখন বিশ্ববাংলা সংবাদ’।

Advt