শিশিরের শপথ কেন বয়কট করেন শুভেন্দু? নন্দীগ্রামের সভায় ফাঁস করলেন মমতা

১৮ দিন আগে যে বিরুলিয়ায় পায়ে চোট পেয়েছিলেন তৃণমূল (Tmc) সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Bandopadhyay), দোল পূর্ণিমা সন্ধেয় সেখানেই সভামঞ্চে থেকে বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তিনি। অভিযোগ করতে গিয়ে শিশির অধিকারীর নাম নিয়ে ফেলেন তিনি। সঙ্গে সঙ্গেই শুধরে নিয়ে মমতা বলেন, প্রবীন তৃণমূল নেতা মন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করেন। তিনি বলেন, “সেই সময় ছেলে বলে বুড়ো ভামকে মন্ত্রী করেছে শপথে গ্রহণে থাকব না”। তৃণমূল সূত্রের খবর, দিল্লি থেকে কাঁথি ফিরে আসেন শুভেন্দু। আর শিশির অধিকারীর শপথে কোনও একজন পুত্রকে রাখার জন্য রাতারাতি উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয় দিব্যেন্দুকে। মমতা কটাক্ষ করে বলেন, এখন বাবা-ছেলে জোট করেছে।

মমতা বলেন, নন্দীগ্রাম (Nandigram) আন্দোলনের সময় তিনি হাজার বাধা পেরিয়ে দিনের পর দিন সেখানে গিয়েছেন। আর যাঁরা নন্দীগ্রামের ভূমিপুত্র বলে নিজেদের দাবি করেন, তাঁরা ‘ছেলে’ দরজা বন্ধ করে ঘরে বসে ছিলেন। তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, তৎকালীন তৃণমূল এখন বিজেপির (Bjp) নেতা মুকুল রায় (Mukul Roy) এই ঘটনার সাক্ষী। যদি সৎসাহস থাকে তাহলে তিনি এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করবেন।

মমতার সভায় এদিনে উপস্থিত ছিলেন সেই সময় নন্দীগ্রাম আন্দোলনের তৃণমূলের স্থানীয় নেতারা। নেত্রীর কথার সত্যতা স্বীকার করেন তাঁরা।

নন্দীগ্রামের রাস্তার অবস্থা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এখানেও তার কটাক্ষের নিশানায় শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, “এতদিন নন্দীগ্রামের বিধায়ক-মন্ত্রী, এত বড় বড় ভাষণ। অথচ রাস্তাঘাটের পর্যন্ত উন্নয়ন করেনি”। এর পরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, “আমি এর আগে এখানে আসতে পারিনি। কারণ, যাদের অন্ধের মতো বিশ্বাস করেছিলাম। তারাই আমাকে এখানে আসতে দেয়নি”। তৃণমূল নেত্রী অভিযোগ করেন, এত টাকা করেছে যে, সেগুলো লুকোতে বিজেপিতে যেতে হয়েছে।

আরও পড়ুন- প্রচারের ফাঁকে মুখোমুখি সেলিম-যশ, সেলিব্রিটি প্রার্থীর সঙ্গে সেলফি তোলায় ব্যস্ত সিপিএম কর্মীরা!

নন্দীগ্রাম আন্দোলন শুধু রাজ্যে বা দেশে নয় বিশ্বের আন্দোলনের ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে বলে জানান মমতা। এবার থেকে তিনি নিজের নন্দীগ্রামের মানুষের পাশে থাকবেন বলে জানান তৃণমূল নেত্রী। বিরুলিয়া বাজারে তিনি 10 মার্চ আহত হয়েছিলেন। তবে, সভার প্রথমেই মমতা বলেন, তাঁর আহত হওয়ার ঘটনায় নন্দীগ্রামের মানুষের কোনও হাত নেই। এটি একটি পরিকল্পিত আক্রমণ।

আরও পড়ুন- মদনের সঙ্গে দোল উৎসব পায়েল-শ্রাবন্তীদের, বেজায় চটে ফেসবুক পোস্ট রূপাঞ্জনার

Advt