বিজেপির অন্দরেই ষড়যন্ত্র! হুগলিতে ছক কষেই দিলীপের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, প্রকাশ্যে অডিও টেপ

রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh )ঘিরে হুগলিতে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন বিজেপি (Bjp) কর্মীরা। দলের অন্তর্দ্বন্দ্ব সামনে আসতেই তৃণমূলের (Tmc) ঘাড়ে অভিযোগ চাপিয়েছিল গেরুয়া শিবির। কিন্তু এবার প্রকাশ্যে ‘ষড়যন্ত্রের’ অডিও টেপ (Audio Tape)। ভাইরাল হওয়া অডিও টেপে এক বিজেপি নেতা ও কর্মীর কথোপকথন। সেখানে শোনা যাচ্ছে সেই নেতা দিলীপ ঘোষ দলীয় কার্যালয় বৈঠকে আসার সময় কর্মীদের বিক্ষোভ দেখানোর জন্য নির্দেশ দিচ্ছেন। যদিও এই অডিও ক্লিপের সত্যতা যাচাই করেনি ‘এখন বিশ্ব বাংলা সংবাদ’।

গত শুক্রবার হুগলি সাংগঠনিক জেলায় বিজেপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করতে যান রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেই বৈঠকে বিজেপির জেলা সভাপতি সহ রাজ্য নেতাদের বিরুদ্ধে স্লোগান ওঠে। বলা হয় বিজেপির জেলা সভাপতি ও কয়েকজন রাজ্য নেতা তৃণমূলের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন। এই ঘটনায় দিলীপ ঘোষসহ বিজেপির একাধিক নেতা বিড়াম্বনার মধ্যে পড়েন।

এই প্রেক্ষিতে একটি অডিও টেপ ভাইরাল হয়। এখানে শোনা যাচ্ছে এক বিজেপি নেতা দলীয় কর্মীকে দিলীপ ঘোষ পৌঁছলে বিক্ষোভ দেখানো নির্দেশ দিচ্ছেন।
কথোপকথন কিছুটা এরকম’

বিজেপি নেতা : তোর তো অনেক বক্তব্য আছে। যারা তোর ফলোয়ার আছে, কিছু লোক নিয়ে চলে যাবি। দিলীপ’দার সামনে বিক্ষোভটা হোক।
বিজেপি কর্মী: আচ্ছা।
বিজেপি নেতা: অনেকেই অনেক বিষয় জানাবে। ক্ষোভ উগরে দেবে। তুই ভাল বলতেও পারিস। যে কথা আমাকে বলছিলি, সেটা দিলীপ’দাকে বলবি।
বিজেপি কর্মী: ঠিক আছে।
বিজেপি নেতা: আর আজকে যদি ঠিকঠাক ক্ষোভ উগরানো হয়, তা হলে মোটামুটি আশা করা যায় কিছু একটা হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।
বিজেপি কর্মী: ঠিক আছে।
বিজেপি নেতা: আপনি আসেননি কেন এত দিন? জেলায় আজকে ৭ খানা বিধানসভা আসন জেতা। সেখান থেকে একটা আসনও আপনারা জিততে পারলেন না। এর দায় আপনারা নেবেন না‌? শুনবেন না আমাদের কথা?
বিজেপি কর্মী: একদম।
বিজেপি নেতা: আজকে আমার বিধানসভায় অন্য একটা লোককে টিকিট দিয়ে দেওয়া হল, কার স্বার্থে?
বিজেপি কর্মী: আজকে ঢুকবে ৪টের সময়, তাই তো? পার্টি অফিসে ঢোকার আগেই কি রাস্তা আটকে দেব না কি?
বিজেপি নেতা: যা হবে, যা।

যদিও গোটা ঘটনায় যে বিজেপি নেতার দিকে অভিযোগের আঙুল উঠেছে, সেই রাজ্য কমিটির সদস্য সুবীর নাগ অবশ্য ঘটনাটিকেই রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র বলে আখ্যা দিয়েছেন। প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাকে ফাঁসানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেন। “ওই অডিও ক্লিলিপটা শুনলে কিছুটা আমার ভয়েজ মনে হবে। আবার কিছু অন্য রকম লাগবে। এই ঘটনার সঙ্গে আমার কোনও যোগাযোগ নেই।”

যদিও বিজেপির রাজ্যের জেনারেল সেক্রেটারি লকেট চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, যাঁরা এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাঁদের চিঠি দিয়ে কারণ জানতে চাওয়া হবে।

বিক্ষোভের পরেই বিজেপি-র তরফে তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়। এই অডিও ক্লিপ ভাইরাল হওয়ার পরে তৃণমূলের হুগলি জেলার সভাপতি দিলীপ যাদবের বলেন, বিজেপি নেতারা আয়না দেখুন। এই ক্লিপিং প্রমাণ করেছে সে দিনের ঘটনার পিছনে তৃণমূল ছিল না।

আরও পড়ুন:ভোট পরবর্তী হিংসার অভিযোগে ফের টুইট রাজ্যপালের, কড়া জবাব দিলেন কুণালও

Advt