Behala:একইদিনে জোড়া হামলা, অস্ত্র দিয়ে কোপানোর অভিযোগ, ধৃত অভিযুক্ত

সন্ধে নাগাদ প্রথম ঘটনাটি ঘটে বেহালার বামাচরণ রায় রোডে। পরের ঘটনাটি ঘটে ঠাকুরপুকুরের আনন্দনগরে

একইদিনে জোড়া হামলা বেহালায়। এই ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়। রবিবার সন্ধে সাড়ে ৭টা নাগাদ প্রথম ঘটনাটি ঘটে বেহালার বামাচরণ রায় রোডে। অভিযোগ, পরিচিত যুবক মা ও মেয়ের ওপর রড ও ধারাল অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। দু’জনকে এলোপাথাড়ি কোপানোর পর, ওই পাড়াতেই দিদির বাড়িতে আশ্রয় নেয় অভিযুক্ত বাপ্পা নিয়োগী। পরে তাকে গ্রেফতার করে বেহালা থানার পুলিশ (Behala Police Station)।গুরুতর জখম মা-মেয়ে বিদ্যাসাগর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন:Bratya Basu: মমতা-অভিষেককে ভয় পেয়েছে বিজেপি, আগরতলায় ব্রাত্য বসু

এরপরের ঘটনা ঘটে ঠাকুরপুকুরের আনন্দনগরে (Anandanagar)।রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ বাজার সেরে ফেরার পথে, দম্পতির ওপর ছুরি নিয়ে হামলার অভিযোগ ওঠে এক যুবকের বিরুদ্ধে। গুরুতর জখম দম্পতি এসএসকেএমে ভর্তি (SSKM Hospital)।হামলাকারীকে গ্রেফতার করেছে ঠাকুরপুকুর থানার পুলিশ (Thakurpukur Police Station)। ধৃত যুবক মানসিক ভারসাম্যহীন বলে দাবি স্থানীয়দের।

জানা গিয়েছে, রেখা দেবীর মেয়ে লতা। গতকাল তাঁরা বাড়িতে একাই ছিলেন। সেই সময় বছর চল্লিশের বাপ্পা নিয়োগী নামে এক ব্যক্তি আচমকাই ধারালো রড ও কাটারি দিয়ে আঘাত করতে থাকে মা ও মেয়েকে।প্রথমে তাঁদের বাড়ি থেকে চিৎকারের আওয়াজ শুনে কিছুটা হতবাক হয়ে পড়ে এলাকাবাসী। এরপর বিপদের আঁচ পেয়ে সেখানে চলে আসেন পাড়া-প্রতিবেশী। তাদের আসতে দেখেই অভিযুক্ত পালিয়ে যায়। এদিকে মা ও মেয়েকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পাড়া প্রতিবেশীরা সঙ্গে-সঙ্গে পুলিশকে খবর দেয়। বেহালা থানার পুলিশ এসে মা ও মেয়েকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বিদ্যাসাগর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

জানা গিয়েছে অভিযুক্তর দিদির বাড়ি ওই এলাকাতেই। হামলার পর সেখানেই লুকিয়ে পড়ে অভিযুক্ত। তবে পুলিশ এসে হাতেনাতে গ্রেফতার করে তাকে।কী কারণে এই হামলা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। স্থানীয় সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে, এই যুবক মানসিক ভারসাম্যহীন। এর আগেও বেশ কয়েকজনের উপর আক্রমণ চালিয়েছে।

Previous articleBratya Basu: মমতা-অভিষেককে ভয় পেয়েছে বিজেপি, আগরতলায় ব্রাত্য বসু