রাজনীতির “হিরো” সাজতে গিয়ে আদিবাসী পরিবারের বিক্ষোভের মুখে শুভেন্দু

প্রবল বিক্ষোভের মুখে পড়ে কার্যত এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেলেন শুভেন্দু অধিকারী, সাংসদ সৌমিত্র খাঁ-সহ বিজেপি নেতারা

তাঁর দল বিজেপির বিরুদ্ধেই সমান্তরাল সংগঠন তৈরি করেছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বঙ্গের গেরুয়া শিবিরে আদি নেতাদের টক্কর দিয়ে “হিরো” সাজতে গিয়ে এবার মুখ পোড়ালেন শুভেন্দু। আজ, বুধবার বাঁকুড়ার তালডাংরার নির্যাতিত আদিবাসী যুবতীর পরিবারকে রাজনৈতিক সান্ত্বনা দিতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়ল বিজেপি প্রতিনিধি দল। যার নেতৃত্বে ছিলেন খোদ শুভেন্দু।

প্রবল বিক্ষোভের মুখে পড়ে কার্যত এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেলেন শুভেন্দু অধিকারী, সাংসদ সৌমিত্র খাঁ-সহ বিজেপি নেতারা। নির্যাতিতার পরিবার জোর গলায় শুভেন্দুকে জানিয়ে দিলেন, ‘কোন সাহায্যের প্রয়োজন নেই। প্রশাসন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে। আপনারা যে রাস্তা দিয়ে এসেছেন সেই রাস্তাতেই ফিরে যান। এখানে আপনাদের দরকার নেই।’

প্রসঙ্গত, গত রবিবার তালডাংরার আমডাংরার জঙ্গলে এক আদিবাসী যুবতীকে জঙ্গলে তুলে নিয়ে গিয়ে মারধরের অভিযোগ ওঠে। যুবতীর পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ইতিমধ্যেই ২ জনকে গ্রেফতার করেছে। আর ঘোলাজলে মাছ ধরার ফর্মুলায় এই ঘটনায় আদিবাসী পরিবারকে সমবেদনা জানাতে বুধবার বিকেলে তালডাংরা গ্রামে যান বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী, বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ, বাঁকুড়ার বিধায়ক নীলাদ্রিশেখর দানা-সহ বিজেপি নেতারা।

কিন্তু আদিবাসী যুবতীর পরিবারের বুঝতে অসুবিধা হয়নি, যে বিজেপি নেতারা রাজনীতি করতে এসেছেন। তাই এদিন শুভেন্দু-সহ বিজেপি নেতাদের বাড়িতে ঘেঁষতেই দেননি পরিবারের লোকেরা। এরপর বিক্ষোভের মুখেও পড়েন শুভেন্দুরা। অগত্যা গ্রাম ছেড়ে কার্যত পালিয়ে যান তাঁরা। এই ঘটনায় বঙ্গ বিজেপির মুষল পর্বে লবির লড়াইয়ে শুভেন্দু যে বেশ ব্যাকফুটে চলে গেলেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আরও পড়ুন- ‘ওকে বেশ দেখতে ভালো, সুন্দর-ফর্সা!’ সকলকে চমকে দিয়ে অর্জুনের প্রশংসায় মদন

 

 

Previous article‘ওকে বেশ দেখতে ভালো, সুন্দর-ফর্সা!’ সকলকে চমকে দিয়ে অর্জুনের প্রশংসায় মদন