দিল্লির যন্তর মন্তরে কংগ্রেসের প্রতিবাদে সামিল রাহুল

দিল্লির যন্তর মন্তরেও সত্যাগ্রহ বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। ইডি দফতরে যাওয়ার আগে সেই ধরনা মঞ্চে গিয়েছিলেন রাহুল। সেখান থেকেই সোজা ইডি (ED) দফতরে পৌঁছন তিনি।

ন্যাশনাল হেরাল্ড মামলায়, সোমবার চতুর্থবার ইডির মুখোমুখি হয়েছেন রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসামূলক আচরণের অভিযোগ তুলে দুদিন ধরে দেশজুড়ে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ জানাচ্ছেন কংগ্রেস কর্মীরা। দিল্লির যন্তর মন্তরেও সত্যাগ্রহ বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। ইডি দফতরে যাওয়ার আগে সেই ধরনা মঞ্চে গিয়েছিলেন রাহুল। সেখান থেকেই সোজা ইডি (ED) দফতরে পৌঁছন তিনি।
এই (National Herald) মামলায় এর আগে ১৩-১৫ জুন, পরপর তিনদিন প্রায় ৩০ ঘণ্টা কংগ্রেস সাংসদকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন ইডি-র অফিসাররা। ১৭ জুন রাহুলকে ফের ডাকা হয়। কংগ্রেস সাংসদ ইডি-র কাছে সময় চেয়ে আজ, সোমবার হাজিরা দেবেন বলে জানান।রাহুলের ইডি দফতরে হাজিরা ঘিরে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অভিযোগ তুলে অবস্থান-বিক্ষোভে বসেছেন কংগ্রেস নেতা, কর্মীরা। পুলিশি ধরপাকড় ঘিরে রাজধানীর রাস্তা যাতে রণক্ষেত্রের চেহারা না নেয়, তাই সতর্কতা হিসাবে দিল্লিতে কংগ্রেসের সদর দফতর আকবর রোডের আশপাশে জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা। ব্যারিকেড তৈরির পাশাপাশি, প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। রাহুল গান্ধীর বাড়ির বাইরেও কড়া নিরাপত্তা।

আরও পড়ুন- ধাক্কা সামলে সামান্য ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার, ২৩৭ পয়েন্ট বাড়ল সেনসেক্স
কৃষি আইন প্রত্যাহারের প্রসঙ্গ তুলে এবার অগ্নিপথ বিতর্কেও মোদি সরকারকে (Modi Government) বিঁধেছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। ৮ বছর ধরে বিজেপি সরকার ‘জয় জওয়ান জয় কিষাণ’-কে অপমান করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। টুইট করে লেখেন, আমি আগেই বলেছিলাম যে প্রধানমন্ত্রীকে কালো কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে হবে। ঠিক একইভাবে বীর ক্ষমাপ্রার্থী হয়ে ওঁকে যুবসম্প্রদায়ের কথা মেনে অগ্নিপথও প্রত্যাহার করতে হবে।

Previous articleধাক্কা সামলে সামান্য ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার, ২৩৭ পয়েন্ট বাড়ল সেনসেক্স