নেত্রীর দিকনির্দেশে দ্রুত নতুন তৃণমূলকে দেখবেন: সভাস্থল পরিদর্শনের পরে জানালেন অভিষেক

২০২৩-এর পঞ্চায়েত নির্বাচনকে সামনে রেখে একদিকে যেমন দলের সংগঠনকে আরও মজবুত করব একইসঙ্গে বাংলার সব প্রান্তের মানুষ যাতে সব সরকারি পরিষেবা পায় তা সুনিশ্চিত করতে হবে। দলীয় শৃঙ্খলায় জোর দিয়ে স্পষ্ট ঘোষণা অভিষেকের।

মানুষের দাবি মেনে আগামীদিন নতুন তৃণমূল কংগ্রেস গড়ে তোলাই লক্ষ্য। বুধবার, বিকেলে ২১- এর সমাবেশের শেষ মূহুর্তের প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে গিয়ে এই মন্তব্য করলেন, তৃণমূলের (TMC) সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee)। তিনি বলেন, তৃণমূল সুপ্রিমোর বক্তব্যই এই সভার প্রধান চমক। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়য়ের (Mamata Banerjee) আদর্শ, ভাবধারা ও চিন্তাভাবনাকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে দেওয়া ও তৃণমূলকে আরও শক্তিশালী করাই তাঁর দায়িত্ব। সে জন্য যা করতে হয়, তিনি করবেন বলে জানান তৃণমূলের (TMC) সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক।

২০২৩-এর পঞ্চায়েত নির্বাচনকে সামনে রেখে একদিকে যেমন দলের সংগঠনকে আরও মজবুত করব একইসঙ্গে বাংলার সব প্রান্তের মানুষ যাতে সব সরকারি পরিষেবা পায় তা সুনিশ্চিত করতে হবে। দলীয় শৃঙ্খলায় জোর দিয়ে স্পষ্ট ঘোষণা অভিষেকের।

বৃহস্পতিবার, তৃণমূল নেত্রী ২১-এর মঞ্চ থেকে যে বার্তা দেবেন গোটা বাংলার প্রতিটি জেলায়- ব্লকে সর্বত্র ছড়িয়ে দিতে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই কাজ শুরু করবে তৃণমূল- স্পষ্ট ঘোষণা অভিষেকের। একই সঙ্গে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এবার ঐতিহাসিক সমাবেশ হবে। যতজন সভায় থাকবেন, তার থেকে অনেক বেশি মানুষ রাস্তায় থাকবেন। বুধবার, রাতের মধ্যে প্রায় একলক্ষ তৃণমূল কর্মী-সমর্থক কলকাতায় পৌঁছে যাবেন বলে জানান অভিষেক।


Previous articleশিবসেনা কার? উত্তর খুঁজতে বৃহত্তর বেঞ্চের ইঙ্গিত প্রধান বিচারপতির